ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ-এর আমীর মুফতি সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম বলেছেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সরকার দলীয় সুবিধার বিবেচনায় সংসদীয় আসন বিন্যাস করা হলে দেশবাসী মানবে না। আসন বিন্যাস হতে হবে রাজনৈতিক দলগুলোর মতামতের ভিত্তিতে ও যথা সম্ভব অখন্ডতা বজায় রেখে।

গতকাল শনিবার বিকেলে রাজধানীর গুলিস্তানস্থ কাজী বশির মিলনায়তনে ইসলামী যুব আন্দোলনের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী বার্ষিকী উপলক্ষে যুব জমায়েতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি কে এম আতিকুর রহমানের সভাপতিত্বে এবং সেক্রেটারী জেনারেল মাওলানা নেছার উদ্দিনের পরিচালনায় প্রথম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী জমায়েতে অন্যানের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইসলামী আন্দোলন এর প্রেসিডিয়াম সদস্য আল্লামা নুরুল হুদা ফয়েজী, মহাসচিব অধ্যক্ষ হাফেজ মাওলানা ইউনুছ আহমাদ, উপদেষ্টা অধ্যাপক আশরাফ আলী আকন, যুগ্ম মহাসচিব অধ্যাপক এটিএম হেমায়েত উদ্দিন ও অধ্যাপক মাহবুবুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক প্রকৌশলী আশরাফুল আলম, প্রচার সম্পাদক মাওলানা আহমাদ আব্দুল কাইয়ুম, যুবনেতা ইঞ্জিনিয়ার শরিফুল ইসলাম, মুহাম্মাদ বশিরুল্লাহ, এ আর খান, আতিকুর রহমান মুজাহিদ, মাওলানা মোখতার হোসাইন, মুফতি রহমাতুল্লাহ বিন হাবিব, মুফতি শেখ মুহাম্মাদ নুরুন্নাবী, মুফতি হোসাইন মুহা. কাওসার বাঙ্গালী, প্রকৌশলী শেখ মুহাম্মাদ মারুফ, মুহাম্মাদ আজিজুল হক, আ হ ম আলাউদ্দীন, মুহাম্মাদ ওসমান গণি, মুহাম্মাদ মাহবুব আলম, মুফতি মানসুর আহমাদ সাকী, মাওলানা মুহাম্মাদ মোরশেদুল আলম, মুহাম্মাদ বদরুজ্জামান, মুহাম্মাদ ইউনুস তালুকদার, ছাত্রনেতা শেখ ফজলুল করীম মারুফসহ যুব আন্দোলন, ইশা ছাত্র আন্দোলন, ইসলামী শ্রমিক আন্দোলন, জাতীয় শিক্ষক ফোরাম, ইসলামী মুক্তিযোদ্ধা পরিষদ, ইসলামী আইনজীবী পরিষদ ও অন্যান্য সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

চরমোনাই পীর আরো বলেন, অবক্ষয় যুব সমাজকে গ্রাস করছে। নৈতিকতা ও মানবিক মূল্যবোধ ক্রমেই ক্ষীণ হচ্ছে। অশ্নীলতা-বেহায়াপনার বহু উপকরণ দেশে বিদ্যমান। ফলে নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, সন্তান কর্তৃক পিতা-মাতা হত্যা ও শিশু হত্যার মত নারকীয় প্রবণতার সমাজ ব্যবস্থার পরিবর্তন আনতে হবে। ইসলামী যুব আন্দোল সেই লক্ষ্যেই গঠিত হয়েছে।

চরমোনাই পীর বলেন, সরকারের হিসাব মতেই দেশের ২৬ লাখ যুবক বেকার। ৪৭ শতাংশ ¯œাতক কর্মহীন। এ অভিশাপ থেকে যুবকদের মুক্ত করে তাদের সঠিক পথে রাখেতে সরকারকেই কার্যকরী উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।