পাঠ্যসূচী নিয়ে নাস্তিকদের চক্রান্ত রুখে দেয়া হবে : মাওলানা আফেন্দী

জুলাই ৩১, ২০১৭

মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী – ছবি : এ.এস.কে সুমন

শিক্ষাক্ষেত্রে নাস্তিকদের চক্রান্ত সহ্য করা হবে না বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের ঢাকা মহানগর সভাপতি মাওলানা মনজুরুল ইসলাম আফেন্দী।

আজ এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, সম্প্রতি বামপন্থী নাস্তিক জাফর ইকবাল, শ্যামলী নাসরিনদের নিয়ে গঠিত শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কমিটি মুসলিম চেতনা সম্বলিত কবিতা-প্রবন্ধ বাদ দিয়ে আবারো হিন্দুত্ববাদী গল্প প্রবন্ধ অন্তর্ভূক্ত করে পান্ডুলিপি চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে। মুসলিম চেতনা বাদ দিয়ে পাঠ্যপুস্তকে পুণরায় হিন্দু মৌলবাদী গল্প,কবিতা,প্রবন্ধ পুনঃস্থাপনের শিক্ষা মন্ত্রীর বাম চক্রান্ত রুখে দেয়া হবে।

মাওলানা আফেন্দী বলেন, শিক্ষাবিদ নামধারী এসব বাম ঘরানার নাস্তিকদের কমিটিতে কেন অর্ন্তভূক্ত করা হলো, শিক্ষামন্ত্রীকে এর জবাব দিতে হবে। শিক্ষানীতি ও সিলেবাস প্রণয়ণের ক্ষেত্রে আলেম ওলামাদের উপেক্ষা করে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়ার জবাবও তাকে দিতে হবে।

মাওলানা আফেন্দী আরো বলেন, পশ্চিমবঙ্গের ৩য় শ্রেণীর বইয়ে একজন মুসলিম কবি লেখকও নেই। ১০০ভাগই হিন্দু। অন্যান্য বইয়ে দু-একজন যা আছে তাও বাদ দিতে বলেছে উগ্র হিন্দু মৌলবাদী সংগঠন আরএসএস। সম্প্রতি তারা বলেছে, পাঠ্যপুস্তকে বিখ্যাত কবি মির্জা গালিব, মকবুল ফিদা হুসাইনদের মতো মুসলিম কবি লেখকদের লেখা রাখা যাবেনা। মোগল সম্রাটদের কোন উদারতা পাঠ্যপুস্তকে রাখা যাবেনা। গুজরাটে গোধরায় ট্রেনে হামলায় মুসলিমরা জড়িত বলতে হবে। কোন সন্দেহ করলে চলবেনা। কথিত রামের জন্মস্থানে বাবরী মসজিদ তৈরী হয়েছিল বলে কোন সন্দেহ করা যাবে না। এই উল্লেখও বাদ দিতে হবে। রংধনু শব্দকেও পরিবর্তন করে রামধনু করতে হবে। পানি বলা যাবে না জল বলতে হবে। অর্থাৎ পাঠ্যপুস্তকে কোন মুসলিম ভাবধারার শব্দ রাখা যাবেনা। আর বাংলাদেশের পাঠ্যপুস্তকে মুসলমানিত্ব বাদ দিয়ে হিন্দুত্ববাদ প্রতিষ্ঠায় শিক্ষামন্ত্রীর নেতৃত্বে নাস্তিক্যবাদীরা অতি সক্রিয় হয়ে উঠেছে। এর প্রতিবাদে কঠোর কর্মসূচী দিয়ে তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা হবে।

তিনি এ বিষয়ে ইসলামী নেতৃবৃন্দকে জরুরী ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত নেয়ার আহবান জানান।