ফ্লাইট বন্ধের সময় বাড়লো

করোনাভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞাও ১৪ এপ্রিল পর‌্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

রোববার বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের (বেবিচক) জনসংযোগ কর্মকর্তা মোহাম্মদ সোহেল কামরুজ্জামান বলেন, আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে যাত্রী পরিবহনের (সিডিউল পেসেঞ্জার ফ্লাইট) ক্ষেত্রে বিমান চলাচল নিষেধাজ্ঞা ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

এ নিষেধাজ্ঞা বাহরাইন, ভুটান, হংকং, ভারত, কুয়েত, মালয়েশিয়া, মালদ্বীপ, ওমান, কাতার, সৌদি আরব, শ্রীলঙ্কা, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, তুরস্ক, ইউএই, ইউসহ মোট ১৬টি রুটের ক্ষেত্রে কার্যকর হবে বলেও জানান তিনি।

একই সাথে অভ্যন্তরীণ যাত্রী পরিবহনের ক্ষেত্রে বিমান চলাচল নিষেধাজ্ঞাও আগামী ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, স্পেশাল কার্গো ফ্লাইট ও কার্গো ফ্লাইট যথারীতি চলবে।

রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সেরও সব ফ্লাইট একই সময় পর্যন্ত বন্ধ থাকবে বলে বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মোকাব্বির হোসেন জানিয়েছেন।

যাত্রীরা যেখান থেকে টিকেট কিনেছিলেন সেখান থেকে প্রয়োজনে টিকেটের টাকা ফেরত নিতে পারবেন বলেও জানান তিনি।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে গত ১৬ মার্চ থেকে যুক্তরাজ্য ছাড়া ইউরোপের অন্যান্য সব দেশের যাত্রীদের আসা বন্ধ করে বাংলাদেশ।

এরপর ২১ মার্চ থেকে ভারত, সৌদি আরব, কাতার, বাহরাইন, কুয়েত, সংযুক্ত আরব আমিরাত, তুরস্ক, মালয়েশিয়া, ওমান ও সিঙ্গাপুরের সঙ্গে আকাশপথ বন্ধ করে দেয় বাংলাদেশ সরকার।

এর পরপরই দেশগুলোর সঙ্গে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট বন্ধ হয়ে যায়। প্রাথমিকভাবে ৩১ মার্চ পর্যন্ত ফ্লাইট বন্ধ রাখার ঘোষণা দিলেও পরে তা বাড়িয়ে ৭ এপ্রিল করেছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স।

তবে এখন বাংলাদেশ থেকে চীনে যাত্রীবাহী ফ্লাইট পরিচালনা অব্যাহত রয়েছে বলে জানান বেবিচক কর্মকর্তারা।