বগুড়ায় যুবলীগ সভাপতির লুকিয়ে রাখা ৬১ বস্তা চাল উদ্ধার

বগুড়ার গাবতলীতে কালোবাজারির উদ্দেশ্যে মজুদ করার অভিযোগে ৬১ বস্তা সরকারি চালসহ রুবেল মিয়া (২৮) ও নজরুল ইসলাম (৪৫) নামে স্থানীয় এক যুবলীগ নেতার দুই সহযোগীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ এপ্রিল) রাত ১১টা থেকে বুধবার ভোর পর্যন্ত উপজেলার দক্ষিণপাড়া ইউনিয়নের উজগ্রাম মগরাপাড়ায় অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাদেরকে গ্রেফতার করে।

রুবেল ওই গ্রামের সালেক উদ্দিনের ছেলে এবং নজরুল ইসলামের মৃত মইন উদ্দিনের ছেলে।

পুলিশ জানায়, গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে রুবেল ও নজরুল জানিয়েছে চালগুলো দক্ষিণপাড়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জুর। তিনি ওই চালগুলো তাদেরকে রাখতে দিয়েছেন। তবে ঘটনার পর থেকে যুবলীগ নেতা মঞ্জুরুল আলম মঞ্জু পলাতক রয়েছেন।

গাবতলী থানা পুলিশের এসআই সুজাউদ্দৌলা জানান, দক্ষিণপাড়া ইউনিয়নের উজগ্রাম মগরাপাড়ায় এক বাড়িতে সরকারি চাল মজুদ করা হয়েছে বলে তাদের কাছে খবর ছিল। গোপন খবরের সূত্র ধরে তারা মঙ্গলবার রাত ১১টার দিকে ওই গ্রামে প্রথমে মাহফুজার রহমান নামে এক ব্যক্তির বাড়িতে যান। সেখানে ৩২ বস্তা চালসহ রুবেল নামে এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। পরে নজরুল ইসলাম নামে অপর এক ব্যক্তির বাড়িতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় তার বাড়ির সীমানায় গাছের লতা-পাতা দিয়ে ঢেকে রাখা অবস্থায় আরও ২৯ বস্তা চালসহ তাকেও গ্রেফতার করা হয়।

অভিযানকালে পুলিশের সঙ্গে থাকা দক্ষিণপাড়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম ছাইফুল জানান, যে চালগুলো জব্দ করা হয়েছে সেগুলো যুবলীগের দক্ষিণপাড়া ইউনিয়ন কমিটির সভাপতি মঞ্জুরুল আলম মঞ্জুর কেনা চাল। তিনি সরকারের খাদ্যবান্ধব কর্মসূচির আওতায় ১০ টাকা কেজি দরের ওই চালগুলো কিনেছেন বলে আমি শুনেছি।

গাবতলী থানা পুলিশের ওসি সাবের রেজা আহম্মেদ জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। পলাতক যুবলীগ নেতা মঞ্জুরুল আলম মঞ্জুকে আসামি করা হবে কি’না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’