বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন ইনসাফকে অনন্যতায় পৌঁছে দিয়েছে

মুহাম্মাদ জাকির হুসাইন | কেন্দ্রীয় সভাপতি : বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিস


বাংলাদেশের ইসলামী ঘরানার প্রথম অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ ইতিমধ্যেই অর্ধযুগ পেরিয়ে সপ্তম বর্ষে পদার্পণ করেছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর এই সময়ে ইনসাফ এর বিজ্ঞ ও সাহসী সম্পাদক সাইয়েদ মাহফুজ খন্দকারসহ সংবাদ কর্মী, উপদেষ্টা মন্ডলী, পাঠক ও সংশ্লিষ্টদের জানাই বাংলাদেশ খেলাফত ছাত্র মজলিসের পক্ষ থেকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও মোবারকবাদ।

ঐতিহাসিক শাপলা ট্রাজেডির ঠিক এক বছর পর ২০১৪ সালের ৫ই মে হলুদ সাংবাদিকতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে সত্য প্রকাশে নির্ভীকতার শপথ নিয়ে পথচলা শুরু করে ইনসাফ। ইনসাফ এর শুরুটা ছিল চ্যালেঞ্জিংয়ের। কারণ, সে সময়ে ইসলাম এবং ওলামায়ে কেরাম ছিল হলুদ মিডিয়ার টার্গেটে। ফলে জাতির সামনে সত্য ছিল অনুদ্ঘাটিত। সত্য অধরাই থেকে যেত। সেসময় প্রয়োজন ছিল হলুদ মিডিয়ার বিরুদ্ধে বুক টান করে সাহসিকতার সাথে সত্য উন্মোচিত করা। আর সেই কাজটাই করেছে ইনসাফ।

জাতির কৃতজ্ঞতা জানানো উচিৎ মাহফুজ খন্দকারকে সাহসী পদক্ষেপের জন্য। অর্ধযুগ ধরে ইনসাফ বস্তুনিষ্ঠতার সাথে সত্য সংবাদ পরিবেশন করে যাচ্ছে। আমি মনে করি ইনসাফ এর সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা অত্যন্ত পেশাদারিত্বের সাথে তাঁদের দায়িত্ব পালন করে থাকেন। ফলে ইতিমধ্যেই সুখ্যাতি ও পাঠক প্রিয়তা অর্জিত হয়েছে। আশাকরি তাঁরা বস্তুনিষ্ঠতা ও পেশাদারিত্ব বজায় রাখবেন।

ইনসাফ আরেকটি কাজ করেছে, সেটা হলো- গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা সভা কিংবা বিজ্ঞ ব্যক্তির সাক্ষাৎকারের ব্যবস্থা করেছে। যা প্রশংসার দাবিদার। ইনসাফ দেশ,জাতি,মানবতা ও মুসলিম উম্মাহর কল্যাণে কাজ করে যাক যুগ যুগ ধরে -সেই প্রত্যাশাই করি।

Previous post ইনসাফ সত্য প্রচারে আপোষহীন
Next post ইনসাফ দেশ ও জাতির আকাঙ্ক্ষা পূরণে সক্ষম হবে