করোনাক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশি চিকিৎসককে নিয়ে ব্রিটিশ মিডিয়ায় আলোচনা

ব্রিটেনে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারী বাংলাদেশি চিকিৎসককে নিয়ে ব্রিটিশ গণমাধ্যমে চলছে তুমুল আলোচনা।

মৃত্যুর মাত্র ৩ সপ্তাহ আগে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনকে খোলা চিঠিতে চিকিৎসকদের জন্যে জরুরি ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম (পিপিই)-সহ অন্যান্য প্রটেকটিভ সামগ্রী সরবরাহের আবেদন জানিয়েছিলেন তিনি।

বৃহস্পতিবার ব্রিটেনের টেলিভিশন চ্যানেলগুলোতে বিশেষ প্রতিবেদন হয়েছে ব্রিটিশ বাংলাদেশি চিকিৎসকের মৃত্যু এবং প্রধানমন্ত্রী বরাবরে তার আবেদন নিয়ে।

শুক্রবার ব্রিটেনের প্রধান প্রধান সংবাদপত্রে স্থান পেয়েছে ডা. মাবুদের মৃত্যু সংবাদ এবং প্রধানমন্ত্রী বরাবরে লেখা তার আবেদন।

এদিকে চিকিৎসকদের শুশ্রূষায় চিঠির প্রাপক প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সুস্থ হয়ে উঠছেন।

গণমাধ্যমে বারবার উঠে আসছে ডা. ফয়সালের শেষ আকুতি- ‘Doctor who pleaded for more hospital PPE dies of coronavirus’.

লন্ডনের রামফোর্ড কুইন এলিজাবেথ হাসপাতালের ইউরোলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. আব্দুল মাবুদ চৌধুরী ওরফে ফয়সাল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত বুধবার ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫৩ বছর।

তার আদি নিবাস হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ থানায়। ডা. আব্দুল মাবুদ চৌধুরী ফয়সাল লন্ডনের কুইন এলিজাবেথ হাসপাতালে ইউরোলজি বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তার স্ত্রী ডা. রানী চৌধুরীও লন্ড‌নের নিউহাম হাসপাতা‌লের চি‌কিৎসক। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও সিলেট ক্যাডেট কলেজের ছাত্র ছিলেন ডা. আব্দুল মাবুদ চৌধুরী ফয়সাল।