বাংলাদেশে করোনা আক্রান্ত খুঁজে না পাওয়া ও একটি গল্প

মাওলানা সালাহউদ্দীন জাহাঙ্গীর | মিডিয়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব


চীনের উহান প্রদেশ থেকে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস গোটা বিশ্বের জন্য এক আতঙ্কের নাম। এই আতঙ্কে বাদ যায়নি প্রিয় বাংলাদেশ। দেশে এ পর্যন্ত ৪৮জন করোনা রোগী সনাক্তের কথা বলা হলেও গত দুদিন কোনো রোগীর সন্ধান পায়নি সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ।

এমন অবস্থা একটি ঘটনাকে স্বরন করে দিচ্ছে। আসুন শুনি কী ঘটনা। রমজান মাসে বেরোজদারের আধিক্য হওয়ায় ক্ষুব্ধ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে আল্লাহ ঘর মাসজিদে মিথ্যচার না করার প্রতিশ্রুতি নিয়ে ইমাম সাহেব দাড়িয়ে মুসল্লীদেরকে জিজ্ঞাস করছেন, আজ কে কে রোজা ভেঙেছেন দয়া করে বলুন।

কেউ বলেননি রোজা ভেঙ্গেছেন, রোজা ভাঙ্গেননি মর্মে সবাই প্রতিশ্রুতি দেন। তবে ঘটনা বাদসাধে মাসজিদ থেকে বের হওয়ার পর। এক বন্ধু কৌতূহলী দৃষ্টিতে অপর ধুরন্ধর বন্ধুকে জিজ্ঞাস করলেন আমি দিনদুপুরে তোকে ভাত খেতে দেখলাম! আর তুই না আল্লাহ্ ঘর মাসজিদে এভাবে! উত্তরে তার বন্ধু হেসে বলল- আমি ভোর রাতে সেহরী খাইনি, রোজার নিয়তও করিনি, আবার রোজা ভাঙলাম কিভাবে!

কালাম সহী, মাগার মতলব……।

সাম্প্রতিক সময়ে উন্নত প্রযুক্তি ও সচেতন রাষ্ট্রগুলো করোনাভাইরাস ইস্যুতে বিরাজমান আল্লাহ্ পাকের গজবে হিমশিম খাচ্ছে। আমাদের প্রিয় বাংলাদেশে গত কয়েকদিন করোনা আক্রান্ত নতুন কোনো রোগীর সন্ধান মিলেনি বলে জানানো হয়েছে। প্রশ্ন আসে ১৮ কোটি মানুষের কত জনের যথাযথভাবে পরীক্ষা করতে পেরেছে দেশ, কতটুকু প্রযুক্তির চাহিদার জোগান দিতে পারছে? আমি বলছি না এ প্রতিবেদন সত্যের অপলাপ। কিন্তু কতজন মানুষকে যথাযথভাবে উন্নত প্রযুক্তির সাহায্যে পরীক্ষা করতে পেরেছেন? বয়োবৃদ্ধ ও অসহায় হতদরিদ্র মানুষগুলোকে বেত্রাঘাতের মাধ্যমেই সব নিয়ন্ত্রণ; এমন অলিক স্বপ্ন আমাদের আরো নিয়ন্ত্রণহীন ভয়াবহতার দিকে নিয়ে যাচ্ছে বৈকি!

মিডিয়ার সুবাধে দায়িত্বশীলদের প্রযুক্তি ও সরঞ্জামের অপ্রতুলতা কথা অবগত হচ্ছে সচেতন জনগণ। আর উৎকন্ঠা ও শঙ্কা প্রকাশ করছে এর ভবিষ্যৎ ভয়াবহতা নিয়ে।

এমতবস্থায় সরকারের দায়িত্বশীলদের পেশাদারিত্ব ও সচেতনতার সাথে সর্বাত্মকভাবে সঠিক রোগ নির্ণয়ের ও সেবা প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

মোকাবেলার কথা না বলে আল্লাহ্ পাকের গজব থেকে আরোগ্য লাভের জন্য বেশী বেশী তওবা ইস্তেগফার করা উচিৎ আমাদের। রাষ্ট্রের উচিৎ কোনো বিষয়কে ধামাচাপা না দিয়ে জনগণের সামনে বাস্তব অবস্থা প্রকাশ করা ও সতর্ক করা।

আল্লাহ আমাদের সকলকে এই মহামারীর আজাব থেকে রক্ষা করুক। আমীন।

 সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম  ফেসবুক  থেকে নেয়া 

Comments are closed.