আমেরিকার তৃতীয় বিশেষ ফ্লাইট সোমবার ঢাকা ছাড়বে

নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে যুক্তরাষ্ট্রের তৃতীয় স্পেশাল ফ্লাইট সোমবার ঢাকা ছেড়ে যাবে।

বৃহস্পতিবার বিকালে ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাসের অফিসিয়্যাল ফেসবুক পেজে প্রচারিত বার্তায় এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়।

গত ৩০শে মার্চ কাতার এয়ারওয়েজের বোয়িং-৭৭৭ উড়োজাহাজে প্রথম ফ্লাইটে ২৬৯ জন এবং ৫ই এপ্রিল দ্বিতীয় স্পেশাল ফ্লাইটে ৩২২ নাগরিক, কূটনীতিক ও তাদের পরিবারের সদস্যদের ঢাকা থেকে ফিরিয়ে নেয় যুক্তরাষ্ট্র। সঙ্গে মার্কিন কূটনীতিকদের পোষা ৯টি কুকুর ও একটি বিড়ালকেও ফেরানো হয়।

পরবর্তীতে বাংলাদেশে অবস্থান করা আরও শতাধিক মার্কিন নাগরিক করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতার আশঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্র ফিরতে নতুন করেন আবেদন করেন। তাদের বেশিরভাগই বাংলাদেশি বংশোদ্ভুত আমেরিকান।

বৈশ্বিক মহামারি নভেল করোনা ভাইরাস বা কোভিড-১৯ এর কারণে বিশেষ পরিস্থিতি এবং নাগরিকদের প্রত্যাবাসনে ফ্লাইট পরিচালনা সংক্রান্ত ঢাকাস্থ মার্কিন দূতাবাস প্রচারিত সর্বশেষ বার্তাটি এমন “নাগরিকদের যারা যুক্তরাষ্ট্র ফিরতে আগ্রহী তাদের বিশেষ সূযোগটি কাজে লাগানো কিংবা কমার্শিয়াল ফ্লাইট চালু না হওয়া পর্যন্ত বাংলাদেশে অবস্থানের প্রস্তুতি গ্রহণে আমরা অনুরোধ জানাচ্ছি।”

দূতাবাসের প্রচার করা আগের মিডিয়া নোটে বলা হয়েছে, শক্তিশালী ভিত্তির ওপর প্রতিষ্ঠিত আমেরিকা-বাংলাদেশ সম্পর্ক। অনেক মার্কিন নাগরিক বাংলাদেশে অবস্থান করছেন। এরমধ্যে কিছু সংখ্যক নাগরিক (নিজ দেশ) ফিরতে চেয়েছেন, আগ্রহীদের ফেরাতে যুক্তরাষ্ট্র সরকার অঙ্গীকারাবদ্ধ।

মার্কিন দূতাবাস জানায়, বাংলাদেশ থাকা আমেরিকার নাগরিকদের নিরাপত্তা এবং কল্যাণ নিশ্চিত করা দূতাবাসের অগ্রাধিকার কর্ম। উদ্ভূত পরিস্থিতিতেও দূতাবাস খোলা থাকছে। বাংলাদেশ অবশিষ্ট মার্কিন নাগরিকরা যেকোনো প্রয়োজনে সেবা পাবেন।

এর আগে পৃথক ৪টি ফ্লাইটে ৩২৭ জন জাপানের নাগরিক, মালয়েশিয়ার ২২৫ নাগরিক,১৩৯ জন ভুটানের নাগরিক এবং ১৭৮ রাশিয়ার নাগরিক বাংলাদেশ ত্যাগ করেন।