ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | সাঈদ মুহাম্মাদ


ভারতবর্ষের শেষ ভাইসরয় লর্ড মাউন্টব্যাটেন বিকৃত যৌনরুচির একজন সমকামী ছিলেন।

ব্রিটিশ রাজনৈতিক নেতাদের একটি গোপন তদন্ত নথিতে মাউন্ট ব্যাটেন ও তার স্ত্রী এডউইনা সম্পর্কে “খুবই নিম্ন নৈতিকতাসম্পন্ন” বলে মন্তব্য করেছে এফবিআই। তার ঘনঘন বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্ক ছিল।

মাউন্টব্যাটেন ব্রিটিশদের কাছে একজন বীর হিসেবে জাতীয় ভাবে সম্মানীত হয়েছিলেন। দক্ষিণ এশিয়ায় মৈত্রী প্রচেষ্টাতেও ব্রিটেনের হয়ে তিনি নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। কিন্তু এফবিআইয়ের তদন্ত ফাইলে তার ব্যাপারে ভিন্ন মন্তব্য আছে। বালকদের প্রতি তার অতি অস্বাভাবিক আগ্রহের কারণে তাকে সাধারণ কোনো মিলিটারি অপারেশনেও নেতৃত্বদানে অযোগ্য বলা হয়েছে।

ভারত ভাগের সময় কায়েদে আজম মুহাম্মদ আলী জিন্নাহ ও পণ্ডিত জওহরলাল নেহ্‌রু মাঝে লর্ড মাউন্টব্যাটেন

উল্লেখ্য ভারত বর্ষের শেষ ভাইসরয় মাউন্ট ব্যাটেনের হিন্দু নেতাদের প্রতি অন্যায্য প্রীতি ভাব ছিল। দেশ ভাগের সময় তিনি বিভিন্ন কৌশলে পাকিস্তানকে তার প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত করেছিলেন। সে সময় স্বাধীন দেশীয় রাজ্যগুলো তার চাপে ও হুমকিতে ভারতে যোগ দিতে বাধ্য হয়েছিল।

ব্রিটিশ ঐতিহাসিক আন্ড্রু লাউনির অনুরোধে (যিনি ব্যাটেনের জীবনী লিখেছেন) তার গবেষণার কাজে সহযোগিতার জন্য এফবিআই মাউন্টব্যাটেনের ব্যক্তিগত জীবনের উপর কিছু কাজ করে। ১৯৪৪ সাল থেকে প্রায় তিন দশকব্যাপি তার জীবনের বিভিন্ন তথ্য এখানে উঠে এসেছে।

“দ্য মাউন্ট ব্যাটেনস: দেয়ার লাইভস এন্ড লাভস” বইতে একটি সাক্ষাতকারে মাউন্টব্যাটেনের ড্রাইভার রন পার্কস বলেছেন, “রাবাতে’র নিকটে রেড হাউস নামে একটি ক্লাব ছিল। এটি আসলে উঁচু তলার সমকামী পতিতালয় ছিল। নেভ্যাল অফিসাররা এখানে যাতায়াত করত। তার বসের সবচে’ প্রিয় গন্তব্য ছিল এটি।”

সূত্র : ডেইলি মেইল