ভারতে মুসলিম হওয়ায় চিকিৎসা পেল না গর্ভধারিণী; নবজাতকের মৃত্যু!

ভারতের রাজস্থান প্রদেশে শুধুমাত্র মুসলমান হওয়ার ‘অপরাধে’ এক অন্তঃসত্ত্বা নারীকে হাসপাতালে ভর্তি করেনি প্রদেশটির সরকারি হাসপাতাল। পরে ওই গর্ভধারিণী চিকিৎসা না পেয়ে অন্য হাসপাতালে যাওয়ার পথে অ্যাম্বুলেন্সেই প্রসব করলে সাথে সাথে নবজাতকের মৃত্যু হয়।

গর্ভধারিণীর স্বামী ইরফান খানের অভিযোগ, আমার স্ত্রীকে অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় সিকরি এলাকার স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখান থেকে আমাদের ভরতপুরের মহিলা হাসপাতালে পাঠানো হয়। কিন্তু সেখানে ডাক্তারেরা জানিয়ে দেন, আমরা মুসলিম তাই আমাদের জয়পুরে যেতে হবে। তিনি বলেন, অ্যাম্বুলেন্সে করে জয়পুরে নিয়ে যাওয়ার সময়েই আমার স্ত্রী সন্তানের জন্ম দেন। কিন্তু আমাদের সন্তান বাঁচেনি। আমাদের সন্তানের মৃত্যুর জন্য জেলা প্রশাসনই দায়ী।

দেশটির রাজস্থানের পর্যটনমন্ত্রী বিশেন্দ্র সিংহ বিষয়টি উল্লেখ করে বলেন, মুসলিম মহিলাকে ধর্মের জন্য ভরতপুরের মহিলা হাসপাতাল থেকে জয়পুরে পাঠানো হল। অথচ ভরতপুরের বিধায়কই রাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী। বিষয়টি লজ্জাজনক। আমার মতে ভরতপুর হাসপাতালের গাইনোকোলজি বিভাগের ডাক্তার মোনিত ওয়ালিয়াই ধর্মের জন্য ওই মহিলাকে ভর্তি করতে চাননি।

এ বিষয়ে ভরতপুরের হাসপাতালের কর্মীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন সর্বভারতীয় মজলিস-ই-ইত্তেহাদুল মুসলিমিনের প্রেসিডেন্ট আসাদউদ্দিন ওয়াইসি।

তিনি বলেন, মুসলিমরা কি হাসপাতালেও যাওয়া বন্ধ করে দেবেন? হিন্দুত্ব কি সরকারি প্রশ্রয় পাচ্ছে? না সমাজের বড় অংশই হিন্দুত্ববাদকে সমর্থন করছে? এই অবস্থা বদলাতে কোনও পদক্ষেপ নেওয়া হবে কি? এমন ঘৃণ্য পরিবেশ তৈরি হচ্ছে যে তার ফলেই মানুষ প্রাণ হারাচ্ছে।