মারা যাওয়ার পরে কি টেস্ট করা হবে? প্রশ্ন রাজশাহী থেকে ঢাকায় আসা সেই নার্সের

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩৩ বছর বয়সী একজন নার্সকে করোনাভাইরাসের উপসর্গ থাকা সন্দেহে জরুরিভাবে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

শুক্রবার থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত রাজশাহীতে বিভিন্ন হাসপাতালে টানাহেঁচড়ার পর পরিস্থিতির অবনতি হলে বুধবার রাতে জরুরিভাবে বিশেষ ব্যবস্থায় তাকে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে।

কিন্তু তাকে টেস্ট করা হচ্ছে না বলে আক্ষেপ করেছেন।

সর্বশেষ তাকে রাজশাহীর বক্ষব্যাধি ও সংক্রমণ রোগ নিয়ন্ত্রণ হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছিল।

আজ গণমাধ্যমকে তিনি বলেছেন, রাজশাহীতে চিকিৎসকরা ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ গত কয়েকদিন ধরে তাকে নিয়ে টানাহেঁচড়া চালিয়েছেন।

তার শরীরে যে সব উপসর্গ রয়েছে তাতে তিনি নিজেই আশঙ্কা করছেন যে তিনি করোনায় আক্রান্ত।

তবে তার করোনা টেস্ট করানো হচ্ছে না। এ জন্য তিনি উদ্বিগ্ন বলেও জানান।

তিনি আক্ষেপের সুরে বলেন, এখন আমার টেস্ট না করা হলে, মারা যাওয়ার পরে কি টেস্ট করা হবে? কেন এই অবহেলা? আমি নার্স হয়েও সুষ্ঠু চিকিৎসা পাচ্ছি না কেন?

এই বিষয়ে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. সাইফুল ফেরদৌস জানান, গত বৃহস্পতিবার রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওই নার্স ঢাকা থেকে ইতালি ফেরত এক প্রবাসীর পাশাপাশি আসনে বসে বাসযোগে ঢাকা থেকে রাজশাহীতে ফেরেন। বাড়ি ফিরেই তার জ্বর হয়। জ্বর নিয়ে তিনি শুক্রবার রাজশাহী মেডিকেলের জরুরি বিভাগে যান। সেখান থেকে পাঠানো হয় মেডিসিন ওয়ার্ডে।

তিনি জানান, ওয়ার্ডের চিকিৎসক ও নার্সরা তার শারীরিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ শেষে তাকে করোনা আক্রান্ত সন্দেহে রাজশাহী বক্ষব্যাধি ও সংক্রমণ রোগ নিরাময় কেন্দ্রে রেফার্ড করেন। তবে রাজশাহীতে করোনা টেস্ট করার ব্যবস্থা না থাকায় ওই নার্সকে বিভিন্নভাবে পর্যবেক্ষণ ও তাকে চিকিৎসা দেয়া হয়।

তিনি আরও জানান, পরিস্থিতি বিবেচনায় মঙ্গলবার রাতে তাকে ঢাকার কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে।

Comments are closed.