গণহত্যার মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে মিয়ানমারে থেকে যাওয়া রোহিঙ্গারা মুসলমানরা : জাতিসংঘের প্রতিবেদন

September 17, 2019

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | অনলাইন ডেস্ক


মিয়ানমারের রাখাইনে থেকে যাওয়া রোহিঙ্গা মুসলমানরা গণহত্যার মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছেন জাতিসংঘের তদন্তকারীরা।

সোমবার জাতিসংঘের ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের প্রকাশ করা নতুন রিপোর্টে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

রিপোর্টে বলা হয়, রোহিঙ্গা বিরোধী অভিযানে খুন, ধর্ষণ ও অগ্নিসংযোগের দায়ে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাংসহ দেশটির শীর্ষ জেনারেলদের বিচারের মুখোমুখি করা উচিত।

মঙ্গলবার এই প্রতিবেদন জেনেভায় জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট রাখাইনের কয়েকটি নিরাপত্তা চৌকিতে হামলার পর পূর্ব-পরিকল্পিত ও কাঠামোবদ্ধ সহিংসতা জোরালো করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। হত্যা-ধর্ষণসহ বিভিন্ন ধারার সহিংসতা ও নিপীড়ন থেকে বাঁচতে বাংলাদেশে পালিয়ে আসে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর প্রায় সাত লাখের মতো মানুষ। সহিংসতা কবলিত রাখাইনের পরিস্থিতি অনুসন্ধানে ওই বছরের মার্চে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন গঠন করে জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিল। গত বছর ওই মিশনের প্রতিবেদনে ২০১৭ সালেরআগস্ট পরবর্তী সময়ে রাখাইনে মিয়ানমারের সেনা অভিযানকে গণহত্যা আখ্যা দেওয়া হয়।

সোমবার ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশনের নতুন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাখাইনে এখনও ছয় লাখ রোহিঙ্গা থেকে গেছে। তারা শোচনীয় পরিস্থিতিতে বসবাস করছে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে এসব রোহিঙ্গাদের চলাফেরায় এমন করে বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে যা তাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে প্রভাব ফেলছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মিয়ানমারের সেনা বাহিনী ও অন্য সরকারি কর্তৃপক্ষের হাতে হত্যা, ধর্ষণ, সংঘবদ্ধ ধর্ষণ, নির্যাতন, বাস্তুচ্যুতি ও অন্যান্য মারাত্মক মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য যেসব অনুষঙ্গ কাজ করেছিল সেগুলো এখনও বহাল রয়েছে।

রোহিঙ্গা নিধনযজ্ঞের দায়ে মিয়ানমারকে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে (আইসিসি) প্রেরণ বা যুগোস্লাভিয়া ও রুয়ান্ডার মতো ট্রাইব্যুনাল গঠনের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেছে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং মিশন। এছাড়া জাতিসংঘ তদন্তকারীদের প্রতিবেদনে বিভিন্ন দেশের সরকার ও কোম্পানিগুলোকে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে সম্পর্ক সীমিত করার আহ্বান জানানো হয়েছে।