মুসলমানদের মধ্যে বিবেদের দেয়াল তুলে ঐক্য বিনষ্টের ষড়যন্ত্র চলছে: আল্লামা শফী

মার্চ ৪, ২০১৬

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


ইসলামী সেবামূলক সংগঠন চট্টগ্রাম হাটহাজারী আল-আমিন ফাউন্ডেশন এর দুই দিন ব্যাপী বিশাল তাফসীরুল কুরআন মাহফিলের সমাপনী দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমীর  আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেছেন, দেশে এখন শুধুই যে ইসলাম ও মুসলমানদের উপর নানাভাবে নিয়ন্ত্রণারোপ ও হেয়প্রতিপন্ন করার চেষ্টা চলছে তা নয়, এদেশের মানুষের মন-মগজ থেকে ইসলামী আদর্শ ও চেতনাবোধ মুছে ফেলারও সর্বাত্মক আয়োজন চলছে সমান গতিতে। শিক্ষা ও সংস্কৃতির ক্ষেত্রেই চলছে সবচেয়ে বড় আকারে ইসলাম বিরোধী আগ্রাসন। দেশের স্কুল-কলেজসমূহে এখন ইসলামী পরিভাষা, ইতিহাস, সংস্কৃতি বাদ দিয়ে নাস্তিকতা ও হিন্দুত্ববাদের তত্ত্ব শেখানো হচ্ছে। স্কুল-কলেজের অধিকাংশ পুস্তকের লেখক ও শিক্ষক এখন সংখ্যালঘুরা। টেক্সট বইয়ে ইসলামী ভাবাদর্শের পরিবর্তে নাস্তিক্যবাদ ও বিজাতীয় তত্ত্বে ভরপুর। এভাবে আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম নাস্তিক্যবাদি মানসিকতার শিক্ষা পেয়ে গড়ে ওঠছে।

শুক্রবার বৃহত্তর চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী ইসলামী সেবামূলক সংগঠন ‘আল-আমিন সংস্থা’র উদ্যোগে হাটহাজারী পার্বতী হাই স্কুল ময়দানে দু’দিন ব্যাপি ঐতিহাসিক তাফসিরুল কুরআন মাহফিলের শেষ দিনের আয়োজন সম্পন্ন হয়। মাওলানা মীর মুহাম্মদ ইদরিস ও মাওলানা মুঈনুদ্দীন রুহি’র পরিচালনায় তাফসীরুল কুরআন মাহফিলে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, হেফাজতে ইসলামের আমীর দারুল উলূম হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী। প্রধান বক্তা ছিলেন, হেফাজতে ইসলামের সিনিয়র নায়েবে আমীর আল্লামা শাহ মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। আরো বক্তব্য রাখেন, মাওলানা ওবায়দুর রহমান খান নদভী, মাওলানা সাজেদুর রহমান, মাওলানা মুফতী সাখাওয়াত হোসাইন, মাওলানা মাহমুদুল হাসান, মাওলানা হবিবুল্লাহ নদভী, মাওলানা সিরাজুল ইসলাম মিরপুরী, মাওলানা মাহমুদ গুনবী, মাওলানা ইসমাঈল খান প্রমুখ।

শাইখুল ইসলাম আল্লামা শফী বলেন, দেশের মানুষের মৌলিক অধিকার বলে এখন কিছুই অবশিষ্ট নেই। মানুষ যে সুখে নেই, রুজি-রোজগার নেই, ভালভাবে খেয়ে-পরে চলতে পারছে না এবং নিজেদের পছন্দ-অপছন্দ ও ন্যূনতম নাগরিক অধিকার প্রয়োগ করতে পারছে না, সেই কথাটাও এখন প্রকাশ্যে বলার সাহস পায় না। খুন-গুম, অপহরণ, ধর্ষণ, শিশু হত্যা, চুরি-ডাকাতি, লুটপাট, ভোটাধিকার হরণ এবং নির্বাচনী তামাশা যেন এখন স্বাভাবিক পরিস্থিতি হয়ে গেছে। তারা আরো বলেন, আমাদের সরকার প্রধান থেকে শুরু করে মন্ত্রী, এমপিদের মুখে এখন প্রতিদিনই দেশের অবিশ্বাস্য উন্নয়ন ও অগ্রগতির কথা শোনা যায়। কিন্তু দেশের বাস্তবিক পরিস্থিতি চলছে ঠিক তার উল্টো। দেশের অল্প কিছু মানুষ দিন দিন অর্থ-বিত্তের পাহাড় গড়ছেন, আর বৃহৎ জনগোষ্ঠী দিন দিন হতদরিদ্র ও নিঃস্ব হতে চলেছে। নেতাদের মুখে এখন গ্রামের কোটি কোটি গরীব, কৃষক, মাঝারি ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, দিন মজুর ও বেকার জনগণের কথা শোনা যায় না। একটা দেশের জনগণের মৌলিক অধিকার কতটা হরণ হলে এমন অসহায় পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে, এতেই তা অনুমান করা যায়।

আল্লামা শাহ আহমদ শফী বলেন, জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্নভাবে যেমন মুসলমানদের ঈমানী চেতনাবোধ ধ্বংসের আয়োজন চলছে, তেমনি মুসলমানদের মধ্যে নানা পর্যায়ে বিবেদের দেয়াল তুলে ঐক্য বিনষ্টের ষড়যন্ত্র চলছে। মুসলমানদের ঐক্য বিনষ্ট করার জন্যে নানা ভ্রান্ত মতবাদের অনুপ্রবেশ দেখা যাচ্ছে। ইসলামের নাম দিয়ে, সঠিক আক্বিদা-বিশ্বাসের নাম দিয়ে নানা বিভ্রান্তি তৈরী করা হচ্ছে। আমাদেরকে এসব ব্যাপারে সতর্ক, সচেতন থাকতে হবে। তিনি বলেন, সবার আগে আমাদের মধ্যে ঈমানী চেতনাববোধ এবং জাতীয় পর্যায়ে ইনসাফপূর্ণ বিচার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।