রাজকীয় নিউজপোর্টালের গল্প

মুহাম্মাদ আফজাল হুসাইন | চেয়ারম্যান : ক্যারিয়ার বাংলাদেশ


সংবাদ পরিবেশন একটি গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব। যার উপর নির্ভর করে জাতির উন্নতি-অগ্রগতি। তবে তা হতে হয় বস্তুনিষ্ঠ ও সততানির্ভর। অন্যথায় তা হয় জাতি ধ্বংসের হাতিয়ার। চলমান বিশ্বে যা দিবালোকের ন্যায় স্পষ্ট। এমন পরিস্থিতিতে বস্তুনিষ্ঠ সৎ সাংবাদিকতা মানেই পাহাড়সম চ্যালেঞ্জের বিষয়। সেই দুর্গম পথ পাড়ি দিতে এগিয়ে এসেছে কিছু সাহসী সত্যান্বেষী তরুণ সাংবাদিক বন্ধু। যাদের মেধা মনন ও রুচির ভিন্নতা, বিষয়বৈচিত্র্য ইতিমধ্যেই গণমানুষের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে সক্ষম হয়েছে। বিশেষ করে আস্থা অর্জন করেছে বোদ্ধামহলের, আলেমসমাজের। সেই সারির অনলাইন নিউজপোর্টালের অগ্রপথিক ইনসাফ।

সাহসী তরুণ সম্পাদক সাইয়্যেদ মাহফুজ খন্দকারের সাথে আমার পরিচয় একটি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে। যার আয়োজক তিনি। পাক্ষিক আড্ডালাপে। তারপর বেশ কয়েকটি আয়োজনেই অতিথি আলোচক হিসাবে আমার যাবার সুযোগ হয়েছে। সমকালের গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আয়োজিত তার প্রায় সবগুলো আয়োজনই ছিল ব্যতিক্রম। বিশেষ করে ইসলামি ঘরানার মাঝে এমন আয়োজন বিরল বলা যায়। বিষয়, অতিথি, আয়োজন, উপস্থাপনা, ব্যবস্থাপনা সবখানেই একটা রাজকীয় ভাব ও ভিন্নতা ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা তারা আন্তরিকভাবে করে থাকেন বলেই আমার কাছে মনে হয়েছে। বিশেষ করে তাদের উপস্থাপিত সংবাদের ভিডিও দেখে আমরা বেশ আপ্লুত। টুপি-পাঞ্জাবি পরিহিত সংবাদ উপস্থাপক সম্ভবত ইনসাফেই প্রথম দেখিয়েছে। উপস্থাপক রায়হানুল কবীর ও ফটোগ্রাফার আলাউদ্দীনের কথা বিশেষভাবে বলতেই হয়। তারা সকীয়তা ধরে রেখে ইসলামি ঘরানায় একটা নজির স্থাপন করেছেন। সবমিলিয়ে একটা মানসম্মত নিউজপোর্টালের প্রতিষ্ঠা ও গতিশীল রাখার জন্য সম্পাদক মহোদয়কে এ জন্যই ক্যারিয়ার বাংলাদেশ গুণীজন সংবার্ধনার তালিকায় এনেছে। এবং সম্মাননা ক্রেস্ট প্রদানের ব্যবস্থা করেছে।

সাংবাদিকতায় অর্ধযুগ পাড়ি দেওয়া খুব সোজা কথা নয়। সেই কঠিন বিষয়টা ইতিমধ্যেই রপ্ত করেছে ইনসাফ পরিবার। অর্ধযুগ পূর্তির এই শুভক্ষণে আমাদের স্মরণ করেছেন সম্পাদক মহোদয়। তাঁর নিরলস মেহনত ও নিবিড় অধ্যাবসায় তাকে একটা স্তরে উপনীত করেছে বলেই আমার বিশ্বাস। এ ধারা অব্যাহত থাকলে ইনসাফের স্বপ্ন ডানা মেলে পৌঁছে যাবে কাঙ্ক্ষিত গন্তব্যে এটা জোর দিয়েই বলা যায়।

দেশ ও জাতির এই দুর্দিনে, নীতিহীন এই অবক্ষয়ের কঠিন দুর্যোগে ইনসাফ সর্বত্র ইনসাফের কথা বলে যাবে দৃপ্ত প্রত্যয়ে, অসীম সাহসে, সুচিন্তিত কৌশলে এটাই আমাদের হৃদয়বীণার গুঞ্জরিত অনুরণন। আশা করি ইনসাফের মাধ্যমে তা উচ্চকিত হবে যথার্থরূপে, তেজোদ্বীপ্ত কণ্ঠে, পরিশীলিত শব্দে, তথ্যবহুল সংবাদ উপস্থাপনার মাধ্যমে।

নিত্য সংবাদ পরিবেশনের পাশাপাশি ইনসাফ আয়োজন করে চলুক জাতি গঠনের গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানমালা। অর্ধযুগ পূর্তিতে এটাই আমাদের ঐকান্তিক প্রত্যাশা। সম্পাদক ও অন্যান্য দায়িত্বশীল সবার প্রতি শুভ কামনা। প্রতিটি ক্ষেত্রে ইনসাফ কায়েমের লক্ষ্যে বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতায় বীরদর্পে এগিয়ে যাক ইনসাফ।