সব অন্যায়ের হিসাব কড়ায়-গন্ডায় বুঝে নেবে জনগণ : রিজভী

নভেম্বর ২, ২০১৯ | নিজস্ব প্রতিনিধি

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেছেন, ‘জনগণের ধৈর্য ও সহ্যের বাঁধ ভেঙে গেছে। ৩০ ডিসেম্বরের আগের রাতে ভোট ডাকাতির পর সারাদেশের ভোটবঞ্চিত মানুষ ক্ষিপ্ত হয়ে আছে। অচিরেই গণবিস্ফোরণ শুরু হবে। জনগণ সব অন্যায়ের হিসাব কড়ায়-গন্ডায় বুঝে নেবে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় রাজধানীর নয়াপল্টনে জাতীয়তাবাদী তাঁতীদলের ঢাকা শাখা আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

রিজভী বলেন, “আওয়ামী ভয়াবহ দুঃশাসনের বিরুদ্ধে কেউ যাতে মাথাচাড়া দিতে কিংবা টু শব্দ উচ্চারণ করতে না পারে, সেজন্য দেশের মানুষের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী ‘গণতন্ত্রের মা’ দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মিথ্যা ও সাজানো মামলায় কারারুদ্ধ করে রেখেছে সরকার। জামিনযোগ্য মামলা হওয়া সত্ত্বেও তাকে জামিন দেয়া হচ্ছে না।”

অবিলম্বে খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানান রিজভী।

তিনি বলেন, ‘দেশনেত্রী শারীরিকভাবে ভীষণ অসুস্থ হলেও তার অসুস্থতা নিয়ে বিএসএমএমইউয়ের পরিচালক চরম মিথ্যাচার করছেন। তিনি প্রেস-ব্রিফিংয়ে সরকারের শেখানো কথাই বলেছেন। আমরা দৃঢ়ভাবে বলতে চাই, অবিলম্বে দেশনেত্রীকে মুক্তি দিয়ে সুচিকিৎসার সুযোগ দিন। অন্যথায় তার সব দায়-দায়িত্ব সরকারকে নিতে হবে।’

বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহ-পরিবার কল্যাণবিষয়ক সম্পাদক ও ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. দেওয়ান মো. সালাহউদ্দিন বাবুর সভাপতিত্বে সভায় উপস্থিত ছিলেন জাতীয়তাবাদী তাঁতী দল কেন্দ্রীয় কমিটির আহ্বায়ক আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাক, তাঁতী দল কেন্দ্রীয় আহ্বায়ক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক অধ্যক্ষ বাহাউদ্দিন বাহার, কাজী মনির, জাহাঙ্গীর আলম, ফিরোজ কিবরিয়া, রেজাউল করিম রানা, মোস্তফা কামাল এবং সদস্য খন্দকার হেলাল ও জাকির হোসেন প্রমুখ।