স্বৈরতন্ত্রের গুহায় বসে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছে: আওয়ামী লীগকে গণফোরাম

ফেব্রুয়ারি ১০, ২০২০ । ডেস্ক রিপোর্ট

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা ড. কামাল হোসেনকে নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের দেয়া বক্তব্যকে বিভ্রান্তিমূলক দাবি করে তার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে গণফোরাম। দলটির পক্ষ থেকে ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে বলা হয়েছে, ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, সত্যের অপলাপ এবং বিভ্রান্তিমূলক।

সোমবার গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

এতে বলা হয়, এটা সম্পূর্ণভাবে ড. কামাল হোসেনের মতো সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার যে অপচেষ্টা মাত্র- তা দেশপ্রেমিক জনগণ সহজেই অনুধাবন করতে সক্ষম। ক্ষমতাসীনরা বরং গণতন্ত্রের আয়নায় নিজেদের চেহারা দেখুন। স্বৈরতন্ত্রের গুহায় বসে যারা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছেন, তাদের মুখে গণতন্ত্রের ছবক দেয়া কোনোক্রমেই বাঞ্ছনীয় ও শোভনীয় নয়।

বিবৃতিতে সুব্রত চৌধুরী বলেন, সর্বস্তরের জনগণ এ দেশের মালিক। সেই মালিকানা কেড়ে নিয়ে ক্ষমতার দম্ভে কেউ যদি অট্টালিকায় বসে সাধারণ শ্রমজীবী, মজুর, রিকশাওয়ালা, কৃষক, শ্রমিকসহ প্রতিটি মানুষকে রাস্তার মানুষ হিসেবে গণ্য করেন, গণতন্ত্রের আয়নায় তাদের নিজেদের চেহারা দেখার জন্য আহ্বান জানায় দলটি। যারা ভোটচুরি করে ক্ষমতা দখল করে আছেন। যারা রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে জনগণের সব অধিকার ছিন্নভিন্ন করেছেন। যারা লুটপাট করে দেশকে ধ্বংস করেছেন। যারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন ও গণবিরোধী, কেবল তাদের পক্ষেই ড. কামাল হোসেনের গণতান্ত্রিক ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার অপপ্রয়াস চালাবে এটাই স্বাভাবিক। তাদের এই ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য গণতান্ত্রিক শিষ্টাচার বহির্ভূত।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ড. কামাল হোসেন গণমানুষের অভিপ্রায় অনুসারে মতামত প্রকাশ করে থাকেন। স্বৈরতন্ত্রের গুহায় বসে যারা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছেন, তাদের মুখে গণতন্ত্রের ছবক দেয়া কোনো ক্রমেই বাঞ্ছনীয় ও শোভনীয় নয়। এ ধরনের অনভিপ্রেত বক্তব্য দেয়া থেকে তাদের বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে গণফোরাম।জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা ড. কামাল হোসেনকে নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের দেয়া বক্তব্যকে বিভ্রান্তিমূলক দাবি করে তার তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানিয়েছে গণফোরাম। দলটির পক্ষ থেকে ক্ষমতাসীনদের উদ্দেশে বলা হয়েছে, ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্যটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত, সত্যের অপলাপ এবং বিভ্রান্তিমূলক।

সোমবার গণফোরামের নির্বাহী সভাপতি অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী স্বাক্ষরিত গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই নিন্দা ও প্রতিবাদ জানানো হয়।

এতে বলা হয়, এটা সম্পূর্ণভাবে ড. কামাল হোসেনের মতো সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তির ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করার যে অপচেষ্টা মাত্র- তা দেশপ্রেমিক জনগণ সহজেই অনুধাবন করতে সক্ষম। ক্ষমতাসীনরা বরং গণতন্ত্রের আয়নায় নিজেদের চেহারা দেখুন। স্বৈরতন্ত্রের গুহায় বসে যারা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছেন, তাদের মুখে গণতন্ত্রের ছবক দেয়া কোনোক্রমেই বাঞ্ছনীয় ও শোভনীয় নয়।

বিবৃতিতে সুব্রত চৌধুরী বলেন, সর্বস্তরের জনগণ এ দেশের মালিক। সেই মালিকানা কেড়ে নিয়ে ক্ষমতার দম্ভে কেউ যদি অট্টালিকায় বসে সাধারণ শ্রমজীবী, মজুর, রিকশাওয়ালা, কৃষক, শ্রমিকসহ প্রতিটি মানুষকে রাস্তার মানুষ হিসেবে গণ্য করেন, গণতন্ত্রের আয়নায় তাদের নিজেদের চেহারা দেখার জন্য আহ্বান জানায় দলটি। যারা ভোটচুরি করে ক্ষমতা দখল করে আছেন। যারা রাষ্ট্রযন্ত্রকে ব্যবহার করে জনগণের সব অধিকার ছিন্নভিন্ন করেছেন। যারা লুটপাট করে দেশকে ধ্বংস করেছেন। যারা জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন ও গণবিরোধী, কেবল তাদের পক্ষেই ড. কামাল হোসেনের গণতান্ত্রিক ভাবমূর্তি বিনষ্ট করার অপপ্রয়াস চালাবে এটাই স্বাভাবিক। তাদের এই ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য গণতান্ত্রিক শিষ্টাচার বহির্ভূত।

বিবৃতিতে আরও বলা হয়, ড. কামাল হোসেন গণমানুষের অভিপ্রায় অনুসারে মতামত প্রকাশ করে থাকেন। স্বৈরতন্ত্রের গুহায় বসে যারা অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল করে আছেন, তাদের মুখে গণতন্ত্রের ছবক দেয়া কোনো ক্রমেই বাঞ্ছনীয় ও শোভনীয় নয়। এ ধরনের অনভিপ্রেত বক্তব্য দেয়া থেকে তাদের বিরত থাকার আহ্বান জানিয়েছে গণফোরাম।