হাজার হাজার মুসলমানদের ঘর ছাড়া করছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী

October 25, 2016

মিয়ানমারের সেনাবাহিনী রাখাইন রাজ্যের কয়েকটি গ্রাম থেকে রোহিঙ্গা মুসলিমদের বের করে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
রবিবার রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠির বেশ কিছু মানুষ সংবাদমাধ্যমের কাছে অভিযোগ করেন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, রবিবার রাখাইন রাজ্যের ‘কেই কান পাইন’ নামে একটি গ্রামে আচমকা প্রবেশ করে দেশটির সীমান্তরক্ষী বাহিনী। এ সময় তারা গ্রামবাসীদের অবিলম্বে এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দেয়। এসময় তাদেরকে অতি প্রয়োজনীয় সামন্য কিছু সঙ্গে নিতে দেয়া হয়েছে।

ফলে প্রাণের ভয়ে আশ্রয় ছেড়ে প্রায় ২ হাজার গ্রামবাসী এরপর থেকে বিভিন্ন এলাকায় লুকিয়ে রয়েছেন।অনেকেই ফসলের ক্ষেতে লুকিয়ে রাত কাটিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীদের পাশাপাশি রোহিঙ্গা সম্প্রদায়ের বয়োজ্যেষ্ঠ ব্যক্তিরা এ খবরের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। মিয়ানমার সরকারের একজন মুখপাত্র দাবি করেছেন, সরকারের পক্ষে ওই এলাকার কারো সঙ্গে যোগাযোগ করা যাচ্ছে না; কারণ ওটি সেনা অভিযানের একটি ‘রেড জোন’ হিসেবে চিহ্নিত।

গত ৯ অক্টোবর মিয়ানমারের বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী তিনটি পুলিশ পোস্টে সশস্ত্র হামলা হয়। ধারাবাহিক এ হামলায় দুই পুলিশ নিহত ও ছয় পুলিশ নিখোঁজ রয়েছেন বলে মিয়ানমারের নিরাপত্তা বাহিনী দাবি করেছে। তারা অভিযোগ করছে, রোহিঙ্গা মুসলমানরা এ হামলা চালিয়েছে। ওই অভিযোগের ভিত্তিতে মুসলমানদের শাস্তি দেয়ার লক্ষ্যে কি কান পিন গ্রামে সেনা অভিযান হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বাংলাদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গারা বলছেন, বার্মায় তাদের স্বজনদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানা যাচ্ছে যে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যরা রোহিঙ্গা মুসলমানদের বহু বাড়িতে আগুন দিয়েছে এবং অনেককে গুলি করে মেরেছে।

রাখাইন রাজ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর দমন পীড়নের বিভিন্ন ছবি এবং ভিডিও নানাভাবে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশ পাচ্ছে। ছবি এবং ভিডিও বিশ্লেষণ করলে বোঝা যায় বার্মার নিরাপত্তা বাহিনী রোহিঙ্গা মুসলমানদের উপর ব্যাপক নির্যাতন চালাচ্ছে।

সূত্র: বিবিসি,রয়টার্স