১৬০০ বছর যাবত কা’বার তত্বাবধান করে আসছে বনু শাইবা গোত্র

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নাহিয়ান হাসান


দেড় শতাধিক প্রযুক্তিবিদ ও নির্মাতা বুধবার (২৭ জুলাই) পবিত্র কা’বা ঘরকে কিসওয়া তথা গিলাফ (বিশেষ কালো কাপড়) দ্বারা আচ্ছাদিত করেছেন।

গত সপ্তাহে কা’বার সিনিয়র তত্ত্বাবধায়ক সালেহ বিন জয়নুল আবিদীন আল-শাইবির হাতে পবিত্র কা’বা ঘরের জন্য প্রস্তুতকৃত নতুন কিসওয়াটি বাদশাহ সালমানের পক্ষ থেকে তুলে দেন মক্কার গভর্নর প্রিন্স খালিদ আল-ফয়সাল।

মক্কার উম্মুল জাউদে অবস্থিত কিং আবদুল আজিজ কমপ্লেক্সে কিসওয়ার কাপড়টি তৈরি করা হয়। এটি প্রাকৃতিক রেশমের তৈরি বিশেষ একটি কাপড় যা কালো বর্ণের। কিসওয়ার কাপড়টি ১৪ মিটার লম্বা। এর ওপরের তৃতীয় ভাগে একটি বেল্ট রয়েছে যা চওড়ায় ৯৫ সে.মি. ও লম্বায় ৪৭ মিটার। বেল্টটিতে ১৬ টি স্কয়ার আকৃতির কাপড়ের অংশ রয়েছে যেগুলো আবার আরেকটি এমন স্কয়ার আকৃতির কাপড় দ্বারা বেষ্টিত যাতে বিভিন্ন ইসলামিক মোটিফ (আয়াত বা হাদিস সম্বলিত ক্যালিগ্রাফি) খোদাইকৃত রয়েছে।

পুরো কিসওয়ার কাপড়টি আলাদা চার অংশে বিভক্ত। পবিত্র কা’বা ঘরের দেয়ালের চারপাশ ঢেকে রাখার জন্যই মূলত চারটি অংশে পুরো কিসওয়া তৈরি করা হয়। তাছাড়া,দরজার জন্য আলাদা ভাবে একটি পর্দা তৈরি করা হয় যা দিয়ে কা’বা ঘরের দরজা ঢেকে রাখা হয়। পর্দা তৈরি করা একটি বহু-পর্যায় প্রক্রিয়ার অন্তর্ভুক্ত। কারণ কাপড়টির চার অংশের সমন্বয়ে কিসওয়াটিকে প্রথমে কা’বা ঘরে লাগানো হয়। পরবর্তীতে, উপরের তৃতীয় অংশে বেল্ট এবং ইসলামিক মোটিফ খচিত টুকরাগুলো কিসওয়ায় সংযোজন করা হয়।

এই পর্যন্ত ১১০ জনেরও বেশি তত্ত্বাবধায়কের পবিত্র কা’বা ঘরের তত্বাবধান করার সৌভাগ্য হয়েছে।

তত্বাবধানের ঐতিহাসিক রীতিটি শতাব্দীর পর শতাব্দী ধরে পালিত হয়ে আসছে।

তত্ত্বাবধায়করা তাদের খোদা প্রদত্ত উত্তরাধিকার রক্ষা করে চলেছেন এমনকি এটা কুরআন ও সুন্নাহ দ্বারাও সমর্থিত।

তত্বাবধান স্বরূপ বনু শাইবা গোত্র ১৬ শতাব্দী যাবত পবিত্র কা’বা ঘরের চাবি নিজেদের কাছে রাখার গৌরব অর্জন করেছে।

ইসলামের পূর্বে কুসাই ইবনে কিলাব ইবনে মুররাহ’র বংশধরেরা কা’বা ঘরের দেখাশোনা ও রক্ষণাবেক্ষণ করতেন। পরবর্তীতে তার অন্যতম বংশধর গোত্র বনী শাইবা তখন থেকে এখনব্ধি এই দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। বর্তমানে পবিত্র কা’বা ঘরের তত্ত্বাবধায়ক তারাই।

তারা সেই গোত্র যাদেরকে মক্কা বিজয় সত্ত্বেও নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কা’বার চাবি ফিরিয়ে দিয়েছিলেন।

কা’বা ঘরের রক্ষণাবেক্ষণ একটি পুরোনো ঐতিহ্যবাহী সম্মানিত দায়িত্ব। পবিত্র কা’বা ঘর খোলা, বন্ধ করা, ঝাড়ু দেওয়া, ধৌত করা, কিসওয়া পরিধান করানো এবং কিসওয়ার কোনো অংশ যদি মেরামত করতে হয় তবে মেরামত করাও এই ঐতিহ্যবাহী দায়িত্বের অন্তর্ভুক্ত।

জমজম ও গোলাপজলের পানি দ্বারা কা’বা ঘর ধৌত করা হয়। কা’বার ঘরের চার পাশের দেয়ালগুলো সুগন্ধযুক্ত পানি দিয়ে মুছে পরিস্কার করে সেখানে নামাজ পড়া হয়।

মসজিদুল হারামের অন্যতম দায়িত্বশীল আনাস আল-শাইবী আরব নিউজকে জানান, আমাদের পূর্বপুরুষ দাদা কুসাই বিন কিলাব যিনি নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামেরও দাদা ছিলেন তিনি এই কা’বা ঘরের তত্ত্বাবধায়ক ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি তার বড় ছেলে আব্দুল -দারের কাছে এই দায়িত্ব অর্পণ করেছিলেন এবং তিনি তার পুত্রদের। এভাবে বংশপরম্পরায় ঐতিহ্যবাহী দায়িত্বটি আমাদের পর্যন্ত চলে এসেছে।

তিনি বলেন, কা’বা ঘরের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বটি মহান আল্লাহ পাকের একটি আশীর্বাদ যা কিয়ামত পর্যন্ত থাকবে। এই পবিত্র ঘরের চাবি সিনিয়র তত্ত্বাবধায়কের ঘরে সংরক্ষণ করে রাখা হয়।

আমরা উত্তরসূরীদের প্রতি আমাদের পূর্বপুরুষদের অসিয়ত ছিল যে, আমরা যেনো খোদা ভীতির পাশাপাশি ইসলামের মৌলিক বড় রোকনগুলোর প্রতি বিশেষ যত্নবান হই ও সেগুলোর হেফাজত করি। কা’বা ঘর খোলার জন্য যখন চাবি নিয়ে যাওয়া হবে তখন যেনো আমরা তা সবুজ রেশম ও স্বর্ণ দ্বারা নির্মিত ওয়াকফকৃত একটি ব্যাগে করে অত্যন্ত বিনয়ী ও নম্রতার সাথে তা নিয়ে যাই।

নাজ্জার আল-শাইবি বলেন, এই দায়িত্ব পাওয়ার জন্য যে বৈশিষ্ট্যগুলোর প্রতি লক্ষ্য রাখা হয় তা হল, পরিবার প্রধান হওয়া যিনি তার পরিবার ও ঘরের যাবতীয় বিষয়ের রক্ষণাবেক্ষণ করেন। আর তাকে অবশ্যই সৎ ও ভাল নৈতিকগুণের অধিকারী হতে হবে।

তিনি বলেন, সময়ের সাথে সাথে চাবির আকৃতিতে পরিবর্তন সাধিত হয় নি বরং আজকের এই বাহ্যিক পরিবর্তনের পিছনে একমাত্র কারণ হল, কা’বা ঘর খুলতে না পারার কারণে চাবি মেরামত করণ।

তিনি বলেন, কা’বা ঘরের চাবির একটি স্বতন্ত্র বাহ্যিক রূপ রয়েছে যা অন্যান্য সাধারণ চাবির সাথে অতুলনীয়।

তিনি বলেন, অদ্বিতীয় পবিত্র কা’বা ঘরের জন্য অবশ্যই চাবিটি এমন হতে হতো যা স্বতন্ত্র আকৃতি বিশিষ্ট এবং বিশেষ উপায়ে নির্মিত। এটিকে এমন অনন্য শৈল্পিক উপায়ে ডিজাইন করা হয়েছে যে,কা’বা ঘরের প্রধান তত্ত্বাবধায়ক ছাড়া আর কেউই তার ব্যবহার পদ্ধতি জানতে পারে না যে,এটি কিভাবে ব্যবহার করতে হয়।

কিসওয়ার ব্যাপারে শাইবি বলেন, সর্বপ্রথম ইয়েমেনের বাদশাহ তুব্বা কা’বা ঘরে কিসওয়া পরিধান করিয়েছিলেন।

পরামর্শ ও উপহার পাওয়ার আশায় ইয়েমেনের বাদশাহর কাছে পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গা থেকে লোকজন আসা-যাওয়া করতো কিন্তু কুরাইশ গোত্রের লোকেরা কখনোই তার কাছে যায়নি। যখন তিনি তাদের সম্পর্কে জানতে চাইলেন তখন তাকে পবিত্র কা’বার কথা জানানো হয় এবং বলা হয় তারা এই পবিত্র ঘরটির রক্ষণাবেক্ষণকারী। এই কথা শুনে কা’বা ঘর গুড়িয়ে দেওয়ার উদ্দেশ্যে বাদশাহ তুব্বা গোপনে তার বাহিনী প্রস্তুত করছিলেন। কিন্তু বাহিনী প্রস্তুত করার সময় তিনি বার বার গুরুতর ভাবে অসুস্থ হয়ে পরছিলেন।

তারা তার এই রোগ নিরাময়ের ব্যর্থ চেষ্টা করে শেষমেশ জানালো যে এটি দুনায়াবী কোনো রোগ নয় বরং আসমানওয়ালা প্রদত্ত রোগ। পরবর্তীতে একজন বিজ্ঞ ব্যক্তি তাকে জানায় যে, তার অন্তরে এমন একটি খারাপ উদ্দেশ্য রয়েছে যার ফলে সে এমন অজানা গুরুতর রোগে ভুগছে, সে যেনো তা পূর্ণ করা থেকে বিরত থাকে।

এই কথা শুনার পর বাদশাহ তুব্বা যখন কা’বা ঘর গুড়িয়ে দেওয়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করা থেকে পিছু হটলেন ঠিক তখনই সাথেসাথে অলৌকিকভাবে তিনি সুস্থ হয়ে গেলেন!

সুস্থ হয়ে যাওয়ার পর তিনি মক্কার অধিবাসীদের জন্য অগণিত উপহার প্রেরণ করেছিলেন। আর তিনিই সর্বপ্রথম ভিন্ন ভিন্ন রঙের কাপড় দ্বারা কা’বা ঘরকে আচ্ছাদিত করেছিলেন এই পর্যন্ত যে সৌদি আরবের প্রতিষ্ঠাতা, বাদশাহ আব্দুল আজিজ একটি কিসওয়া ফ্যাক্টরি প্রতিষ্ঠা করেন। কা’বা ঘরকে আচ্ছাদিত করার জন্য বর্তমানে সেখান থেকেই প্রতি বছর কা’বার সিনিয়র কেয়ার টেকারের কাছে কিসওয়া প্রেরণ করা হচ্ছে।

পারিবারিক ঐতিহ্য হওয়ায় রক্ষণাবেক্ষণের এই গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালনের পদ্ধতিতে কোনো বিরোধ দেখা দিয়েছিল কি না এমন প্রশ্নের জবাবে আল-শাইবি আরব নিউজকে বলেন, আমাদের পরিবার সুসঙ্গত ও সংঘবদ্ধ। যেকোনো সমস্যা অভ্যন্তরীণভাবে সমাধান করে ফেলা হয়।রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বটি মূলত আমাদের গোত্র প্রধানই সামলিয়ে থাকেন।

তাছাড়া, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের বাণী মতে শুধুমাত্র একজন অত্যাচারীই এই দায়িত্ব বনু শাইবা গোত্র থেকে নিয়ে নিবে।

আল্লাহ তায়ালা ১৬ শতাব্দী পূর্বে এই পরিবারটিকে কা’বা ঘরের রক্ষণাবেক্ষণের জন্য নির্বাচিত করেছিলেন। তাই বলা যায়, এই দায়িত্ব পালনের পিছনে বনু শাইবা গোত্রের একটি স্বর্গীয় ভূমিকা রয়েছে।

বনু শাইবা গোত্রের এখন পর্যন্ত ১১০ জনের এই দায়িত্ব পালনের সৌভাগ্য অর্জিত হয়েছে।

বংশ পরম্পরায় কা’বার রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব শাইবি গোত্রের বর্তমান প্রজন্মের কাছে আসার আগে তত্ত্বাবধায়কের দায়িত্ব ছিল, কা’বা ঘরের দরজা খোলা, বন্ধ করা, কিসওয়ার তদারকি করা, মেরামতের প্রয়োজন হলে দ্রুত উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া অর্থাৎ নতুন তৈরি করা বা পুরোনোটিকেই মেরামত করে সংযোজন করা, ধূপ ব্যবহার করা, ঝাড়ু দেওয়া, ধৌত করা এবং মাকামে ইবরাহীম পাহারা দেওয়া।

বর্তমানে তত্ত্বাবধায়কদের দায়িত্ব শুধুমাত্র কা’বা ঘর খোলা ও বন্ধ করার মধ্যে সীমাবদ্ধ। তাছাড়া, রাষ্ট্রীয় অতিথিদের পরিদর্শনের জন্য যদি তা অবশ্যই খুলতে হয় তবে শাইবি গোত্র প্রধানের সাথে সরকারকে যোগাযোগ করতে হয়।

সূত্র: আরব নিউজ।

শেয়ার করুণ
  •