‘২০ দলীয় জোট থাকার কোন যৌক্তিকতা নেই’

মে ৭, ২০১৯

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | এম  মাহিরজান


২০ দলীয় জোট থেকে বেরিয়ে গেল বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি)। গতকাল সোমবার দলের চেয়ারম্যান আন্দালিভ রহমান পার্থ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দলটি ১৯৯৯ সাল থেকে চারদলীয় জোট এবং পরবর্তীতে ২০ দলীয় জোটে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে আসছে। ১৯৯৯ সালে চার দলীয় জোট গঠন হলে এর অন্যতম শরীক ছিল এরশাদের জাতীয় পার্টি। পরবর্তীতে এরশাদ চার দলীয় জোট থেকে বের হয়ে যায়। তবে জোটে থেকে যায় দলের দলটির অন্যতম প্রভাবশালী নেতা নাজিউর রহমান মঞ্জু। চারদলীয় জোটের অন্যতম নেতা ছিলেন। নাজিউর রহমান মঞ্জু ২০০৮ সালে ইন্তেকালের পর দলের চেয়ারম্যান হন তারই পুত্র আন্দালিভ রহমান পার্থ। বর্তমানে তিনি দলের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছেন।

১৯৯৯ সালে গঠন হওয়া চারদল এর মধ্যে ভেঙ্গে হয়েছে ১৮ দল ও পরবর্তীতে ২০ দল। এছাড়াও জোটে থাকা দলগুলোও ভেঙ্গে টুকরো টুকরো হয়েছে। বিশেষ করে ইসলামী ঐক্যজোট ভেঙ্গে অসংখ্য দল ও জোট তৈরি হয়েছে। ১৯৯৯ সালে যখন ইসলামী ঐক্যজোট চারদলীয় জোটে যুক্ত হয়, তখন তা ছিল ইসলামী দলগুলোর একটি জোট। পরবর্তীতে ইসলামী ঐক্যজোট ভেঙ্গে হয়েছে কয়েক টুকরো। এর মধ্যে থাকা দলগুলোও ভেঙ্গেছে কয়েকদফায়।

বর্তমানে ২০ দলীয় জোটে বেশ কয়েকটি ইসলামী দল রয়েছে। বিশেষ করে কওমী অঙ্গনের আলোচিত ও নিবন্ধিত দুইটি দল আছে ২০ দলে। দলগুলো হচ্ছে জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম ও খেলাফত মজলিস। ইসলামী ঐক্যজোটের একটি অংশও রয়েছে ২০ দলের সাথে। এছাড়াও বড় দলের মধ্যে জামায়াতে ইসলামীও এখনো ২০ দলেই আছে।

গতকাল পার্থ জোট থেকে বের হওয়ার ঘোষণা দেয়ার পর আজ লেবার পার্টির মুস্তাফিজুর রহমান ইরানও একই পথে হাটার ইঙ্গিত দিয়েছেন। তিনি বিএনপিকে ১৫ দিনের আল্টিমেটাম দিয়েছেন। রাজনৈতিক বোদ্ধারা বলছেন, ইরানের এই ইঙ্গিত স্পষ্ট জোট ছাড়ার সিদ্ধান্তের বার্তাই। জোট ত্যাগ করা ইরানের জন্য এখন আনুষ্ঠানিকতা মাত্র।

২০ দলের অন্যতম শরীক জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সহসভাপতি প্রবীণ রাজনীতিবিদ মাওলানা আবদুর রব ইউসুফীর মতে ২০ দলের জোট থাকার এখন কোন যৌক্তিকতা নেই। তিনি মনে করে নির্বাচনের পর ও তারও আগে ঐক্যফ্রন্ট নিয়ে বিএনপির ২০ দলকে এড়িয়ে পথ চলা জোট থাকার প্রয়োজনীয়তা হারিয়েছে।

তিনি বলেন, আমরা জোটগতভাবে নির্বাচন করেছি। বিএনপি সহ জোটের সবগুলো দলের প্রার্থীই জোটের প্রার্থী। জোটের প্রার্থীরা সংসদে যাচ্ছে, একথা তো বিএনপি আমাদের জানায়নি। বিএনপির পক্ষ থেকে আমাদের জানানো হয়েছিল যে, ২০ দলীয় জোট ও ঐক্যফ্রন্ট থেকে নির্বাচিত কোন প্রার্থীই শপথ নেবেনা। কিন্তু হটাত করে তারা শপথ নিল। এবং এখন বলা হচ্ছে, সংসদে না যাওয়ার সিদ্ধান্ত ভুল ছিল! কিন্তু এতকিছু হয়ে গেলেও বিএনপি জোটকে কিছুই জানায়নি। তাহলে আর এই জোট অক্ষুন্য থেকে লাভ কি?

তারমানে কি আপনারাও জোট থেকে বের হচ্ছেন? এমন প্রশ্নের জবাবে মাওলনা ইউসুফী বলেন, আমাদের দল এখন পর্যন্ত এমন কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি। দলের মহাসচিব এখন উমরাহ সফরে আছেন। এছাড়াও দলের সভাপতি অসুস্থ ।  আমরা এধরণের কোন সিদ্ধান্ত নেইনি। তবে আমি ব্যাক্তিগতভাবে মনে করি ২০ দলীয় জোট থাকার কোন যৌক্তিকতা এখন নেই।

জোটের আরেক শরীক দল খেলাফত মজলিস জোট নিয়ে কিভাবেছে, বা জোট ত্যাগের কোন সম্ভাবনা আছে কিনা জানতে চাইলে দলটির যুগ্মমহাসচিব মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী বলেন, আমরা যেহেতু জোটে ছিলাম। এখন পর্যন্ত জোট থেকে বের হওয়ার কোন ঘোষণা দেইনি, সে হিসেবে বলা যায় আমরা এখনো জোটেই আছি। এছাড়াও ২০ দলের তেমন কোন কর্মসূচী নেই, জোটের প্রধান দল বিএনপি নিজ দলের মধ্যে নানা রকম সমস্যা নিয়ে দিন পার করছে। আর আমাদের দল খেলাফত মজলিস নিজ দলের কর্মসূচীগুলো বাস্তবায়নে মনোযোগী হয়েছে। আমরা নিজেদের কাজগুলো ঠিকভাবে করে যাচ্ছি। জোট যদি কোন প্রোগ্রাম দেয়, অংশগ্রহণের বিষয়ে দলের মিটিং-এ সিদ্ধান্ত হবে।

এখন পর্যন্ত জোট থেকে বের হওয়ার কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলেও জানান খেলাফত মজলিসের এই নেতা।