৩১ মার্চ পর্যন্ত লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর লকডাউন

করোনার সংক্রমণ থেকে নিরাপদ থাকতে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দরে আজ রবিবার থেকে আগানী ৩১ মার্চ পর্যন্ত সব ধরনের আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

গতকাল শনিবার (২১ মার্চ) রাতে জরুরি বৈঠকে ভারত-বাংলাদেশের যৌথ সিদ্ধান্তে আমদানি-রপ্তানি বন্ধের ঘোষণা করা হয়।

এসময় ভারতের পাসপোর্টধারী যাত্রীদের নিজ নিজ দেশে ফিরতে বিশেষ ব্যবস্থায় ইমিগ্রেশন খোলা থাকবে।

ইমিগ্রেশন অফিস থেকে জানা গেছে, শনিবার রাতে ভারত-বাংলাদেশের যৌথ সিদ্ধান্তে জরুরি বৈঠক হয়। সেখান থেকে করোনাভাইরাস মোকাবেলায় ভারত সরকার তাদের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দরকে ২২-৩১ মার্চ পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করেছে। একই সাথে বুড়িমারী স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দেওয়া হয়।

বুড়িমারী স্থলবন্দরের আমদানি-রপ্তানিকারক সমিতির সভাপতি পাটগ্রাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান রুহুল আমিন বাবুল বলেন, দুই দেশের সিদ্ধান্তে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ করা হয়েছে। তবে ভারতে থাকা পাসপোর্টধারী যাত্রীরা নিজ নিজ দেশে ফিরতে পারবেন।

বুড়িমারী চেকপোস্টের ইমিগ্রেশন পুলিশ অফিসার উপ-পরিদর্শক এসআই আনোয়ার হোসেন বলেন, চীনে করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করায় স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন চেকপোস্টে কাজ শুরু করেছে স্বাস্থ্য বিভাগ। প্রতিদিন দুইজন করে স্বাস্থ্যকর্মী পালাক্রমে এখানে দায়িত্ব পালন করছেন। আটকে থাকা উভয় দেশের পাসপোর্টধারী নাগরিকরা দেশে ফিরতে পারবেন।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক আবু জাফর বলেন, স্থলবন্দরে আমদানি-রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করায় বুড়িমারী স্থলবন্দরের কার্যক্রমও ৩১ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। করোনাভাইরাস ঠেকাতে স্থলবন্দরে ২২-৩১ পর্যন্ত আমদানি-রপ্তানি বন্ধ থাকবে।