শিশুসন্তান বিক্রি করেও রেহাই পাননি পাষণ্ড স্বামীর যৌতুকের নির্যাতন থেকে!

টাঙ্গাইল সদরের এক হতভাগা মা তার দেড়মাস বয়সী শিশু সন্তানকে বিক্রি করে দিয়েও রেহাই পাননি স্বামী ও শ্বশুরবাড়ি লোকজনের অমানুষিক নির্যাতন থেকে!সম্প্রতি আবারো একই দাবীতে বর্বরোচিত নির্যাতনের শিকার হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই নারী। এদিকে মামলা হলেও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। অবিশ্বাস্য শুনালেও তিনি এমন এক হতভাগা মা, যিনি দশ মাস সন্তানকে নিরাপদে গর্ভে আগলে রাখলেও জম্মদানের পর দেড়মাসও বুকে ধরে রাখতে পারেনি! মাত্র বিশ হাজার টাকায় শিশু সন্তানটিকে বিক্রি করে দিয়েছে পাষণ্ড স্বামী।

বুকের ধন বিক্রি টাকাতেও লালসা মিটেনি। হতদরিদ্র পরিবারের কাছে আরো দুই লাখ টাকা যৌতুকের দাবীতে আবারো শুক্রবার খুঁটির সঙ্গে বেঁধে অমানবিকভাবে নির্যাতন করেছে স্বামী ও তার পরিবার।

টাঙ্গাইল সদরের খারজানা গ্রামের মৃত বিশা মিয়ার ছেলে আশরাফের সঙ্গে বিয়ে হয় হতদরিদ্র পিতার সন্তান ওই নারীর। কিছু দিন সংসার ভালো কাটলেও অভাব অনটনে যৌতুকের দাবীতে তাকে প্রায়ই শারীরিক নির্যাতন করতো তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির সদসস্যরা। স্থানীয়রা বাঁধা দিলেও কোন প্রকার কর্ণপাত করেনি তারা।

পরে, স্থানীয় নির্যাতনের ভিডিও ধারণ করে চেয়ারম্যানকে অবহিত করলে তিনি তাকে উদ্ধার করে মূমূর্ষ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করে।

এদিকে, তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহণের কথা জানিয়েছে পুলিশ। আর, প্রকাশ্যে খুঁটির সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনকারীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেছে স্থানীয়রা।