বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে সুসম্পর্ক সত্ত্বেও থেমে নেই সীমান্ত হত্যা!

বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যকার উচ্চমাত্রার সুসম্পর্কে বিশ্বে একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত বলে দু’দেশের সরকার দাবি করলেও বাস্তবে এর কোনো প্রতিফলন দেখা যায়নি, সীমান্তে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশিকে গুলি করে হত্যা করে যাচ্ছে ভারতীয় বাহিনী। এমনকি আজকেও সিলেটের বিছানাকান্দি সীমান্তে সিরাজ উদ্দীন (৪০) নামে এক বাংলাদেশিকে গুলি হত্যা করেছে ভারতীয় খাসিয়া।

সীমান্তহত্যা বন্ধে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে দুই দেশের মধ্যে নানা সময়ে নানা আলোচনা, অঙ্গিকার বা আশ্বাস দেওয়া হলেও তাতে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটেনি, বরং সাম্প্রতিক মাসগুলিতে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) অসংখ্য বাংলাদেশি নাগরিকদের গুলি করে হত্যা করেছে।

মানবাধিতার সংস্থা আইন ও শালিশ কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী গত বছরের প্রথম ছয়মাসে সীমান্তে যতগুলো হত্যাকাণ্ড হয়েছে, এই বছরের প্রথম ছয়মাসে সেই সংখ্যা তার চেয়েও বেশী। সীমান্তে এ রকম সবগুলো হত্যার সঙ্গে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী জড়িত।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি ২০২০ সালের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত যারা সীমান্তে নিহত গেছেন, তাদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি নিহত হয়েছেন রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের বিভিন্ন সীমান্তে। তবে বেসরকারি সংস্থাগুলো মনে করে, সীমান্তে হত্যার সংখ্যা আরো অনেক বেশি। যা অনেক সময় মিডিয়া পর্যন্ত আসেই না।

আইন ও সালিশ কেন্দ্রের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, ২০১৯ সালের জানুয়ারি থেকে জুন মাসের মধ্যে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে ১৮ জন বাংলাদেশি নাগরিকের মৃত্যু হয়েছিল, আর নির্যাতনে মারা গেছেন দুই জন। আর ২০২০ সালের প্রথম ছয়মাসে সীমান্তে হত্যাকাণ্ডের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৫ জনে।

আসকের তথ্যমতে, ২০১৯ সালে বিএসএফের হাতে মোট ৪৩ জন বাংলাদেশি প্রাণ হারিয়েছিলেন। এর মধ্যে ৩৭ জনই গুলিতে নিহত হন। বাকি ৬ জন নির্যাতনে মারা যান। আগের বছর ২০১৮ সালে এ সংখ্যা ছিল ১৪ জন। আইন ও সালিশ কেন্দ্রের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৯ সালের পুরো সময়টায় ভারতের সীমান্তরক্ষা বাহিনী বা বিএসএফ’র হাতে প্রাণ হারিয়েছিলেন ৪৩ জন বাংলাদেশি-যাদের মধ্যে ৩৭ জন প্রাণ হারিয়েছিলেন গুলিতে, আর বাকি ৬ জনকে নির্যাতন করে মারা হয়।

মানবাধিকার সংগঠনগুলোর সংগ্রহ করা তথ্যে দেখা গেছে, এ বছর জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত সীমান্তে ২৫ জন বাংলাদেশি নাগরিক নিহত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ২১ জনেরই মৃত্যু হয়েছে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বা বিএসএফের সৈন্যদের গুলিতে। আর ৪ নির্যাতনে মৃত্যু বরণ করন।

তবে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ বরাবরই দাবি করে আসছে, সীমান্তে অপরাধের সঙ্গে জড়িতরা ভারতীয় প্রহরীদের ওপরে আক্রমণ করলে তবেই কেবল প্রাণ বাঁচাতে তারা গুলি চালিয়ে থাকেন!

About |

Check Also

আল্লামা জুনাইদ বাবুনগরীর ইমামতিতে মুফতী গোলাম কাদের এর জানাজা সম্পন্ন

ইনসাফ | মাহবুবুল মান্নান হাটহাজারী মাদরাসার শাইখুল হাদিস ও শিক্ষাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর ইমামতিতে দক্ষিণ …