যুদ্ধবাজ হাফতারের পক্ষে লিবিয়ায় সেনা পাঠানোর অনুমতি দিল মিশরের পার্লামেন্ট

লিবিয়ার জাতিসংঘ সমর্থিত জিএনএ সরকারের বিরুদ্ধে যুদ্ধবাজ খলিফা হাফতার ও বিদ্রোহীদের এতদিন উস্কে দিচ্ছে মিশর, রাশিয়া ও আরব আমিরাত। এবার আরেকটু বাড়িয়ে সরাসরি আন্তর্জাতিক স্বীকৃত সরকারের বিরুদ্ধে লিবিয়ায় সেনা পাঠানোর অনুমোদন দিলো মিশরের স্বৈরশাসক আবদেল ফাতাহ আল সিসির পার্লামেন্ট। লিবিয়ার স্বীকৃত সরকারের বিরুদ্ধে সেনা প্রেরণের মাধ্যমে পুরো লিবিয়াকে যুদ্ধের ক্ষেত্র বানাচ্ছে সিসি।

সোমবার (২০ জুলাই) লিবিয়ার অভ্যন্তরীন ইস্যুকে জাতীয় নিরাপত্তা দাবি করে মিশর এই সেনা প্রেরনের প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে।

২০১১ সালে মুয়াম্মার গাদ্দাফির পতনের পর জর্জরিত হয়ে আছে উত্তর আফ্রিকার তেল সমৃদ্ধ দেশ লিবিয়া। গত প্রায় পাঁচ বছর ধরে দেশটিতে আন্তর্জাতিক সরকারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে আসছে যুদ্ধবাজ খলিফা হাফতার। এই যুদ্ধবাজ বিদ্রোহীকে প্রকাশ্য মদদ দিয়ে যাচ্ছে মিশর, রাশিয়া ও সংযুক্ত আরব আমিরাত। এর আগে মিশরের স্বৈরশাসক আব্দেল ফাত্তাহ আল-সিসি রাজধানী কায়রোতে বৈঠক করে লিবিয়ার বেনগাজির উপজাতির নেতাদের জাতিসংঘ সমর্থিত সরকারকে বিরুদ্ধে উসকে দেয়। এছাড়া তাদের অস্ত্র দিয়ে সিসি যুদ্ধের পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চাইছে।


লিবিয়ায় আন্তর্জাতিক স্বীকৃত জিএনএ সরকারকে সমর্থন দিচ্ছে তুরস্ক। এ বিষয়ে প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বলেছেন, ৫০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে লিবিয়ার সাথে আমাদের ভ্রাতৃত্বের সম্পর্ক। আমরা আমাদের লিবিয় ভাইদের একা ছেড়ে যাব না। লিবিয়ার ব্যাপারে তুরস্ক যে দায়িত্ব আজ অবধি পালন করে আসছে ভবিষ্যতেও তা নিষ্ঠার সাথে পালন করে যাবে।