ভারতের আগরতলা, কলকাতা, গৌহাটিতে ও অস্ট্রেলিয়ায় একাধিক বাড়ি রয়েছে প্রদীপ দাশের

টেকনাফের গ্রেফতারকৃত ওসি প্রদীপ কুমার দাশের দেশ-বিদেশে রয়েছে সম্পদের পাহাড়। দেশের সীমানা ছাড়িয়ে ভারতের আগরতলা, কলকাতা, গৌহাটিতে ও অস্ট্রেলিয়ায় গড়ে তুলেছেন সম্পদ-সাম্রাজ্য। ঘুষ, দুর্নীতি, ব্ল্যাকমেইলিংয়ের মাধ্যমে তিনি বিপুল সম্পত্তি অর্জন করেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রাথমিক অনুসন্ধানে উঠে এসেছে প্রদীপ কুমার দাশের বিপুল অবৈধ সম্পদের তথ্য।

দুদক সূত্র জানায়, সিনহা হত্যা মামলার আসামি টেকনাফের গ্রেফতারকৃত ওসি প্রদীপ কুমারের নামে-বেনামে থাকা সম্পদের অনেক তথ্য এখন দুদকের হাতে। ইতিমধ্যে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য সংস্থাটি সংগ্রহ করেছে। এছাড়া নিজস্ব গোয়েন্দা ইউনিটও অনেক তথ্য সংগ্রহ করেছে। বিষয়টির অনুসন্ধানে একটি বিশেষ টিম কাজ করছে। এর আগে ২০১৮ সালে প্রদীপের বিরুদ্ধে অনুসন্ধান করে দুদক। এ সময় দুদকে নিজের সম্পদ বিবরণী দাখিল করেন প্রদীপ। তবে অদৃশ্য ইশারায় সেই অনুসন্ধান ধামাচাপা পড়ে ছিলো। মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যার ঘটনা আলোচনায় এলে প্রদীপ কুমার দাশের ফাইলটি আবার সচল হয়।

দুদক সূত্র জানায়, গতবছর প্রদীপের সম্পদ অনুসন্ধান শুরু করে দুদক। সেখানে সম্পদের তিনি যে তথ্য দিয়েছেন তাতে অধিকাংশ তথ্যই তিনি গোপন করেছেন। ওই তথ্যের বাইরেও চট্টগ্রামের লালখান বাজারে ফ্লাট, কক্সবাজারে দুটি হোটেলের মালিকানা, দেশের বিভিন্ন স্থানে জায়গা-জমি ও ভবন রয়েছে। এছাড়া ভারতের আগরতলা, কলকাতার বারাসাত, গৌহাটি এবং অস্ট্রেলিয়ায় তার বাড়ি রয়েছে। এসব বিষয়ে দুদক কর্মকর্তারাও নতুন করে তত্ত্ব-তালাশ করছেন।

সূত্রমতে,তার অবৈধ আয়ের অর্থ দিয়ে স্ত্রী চুমকির নামে বেশি সম্পদ কিনেছেন। বোয়ালখালীতে স্ত্রীর নামে কয়েক কোটি টাকার সম্পদ কিনেছেন। বোয়ালখালী সারোয়াতলী ইউনিয়নে প্রদীপের স্ত্রীর নামে এলাকায় মাছের খামার রয়েছে। অবৈধ অর্থে চট্টগ্রামে গড়েছেন সম্পদের পাহাড়। বিলাসবহুল বাড়ি-গাড়ি, বিপুল পরিমাণ কৃষি-অকৃষি জমি। স্ত্রীর নামে তিনি ব্যাংকে রেখেছেন বিপুল পরিমাণ টাকা। বিদেশে টাকা পাচারের অভিযোগও উঠেছে তার বিরুদ্ধে। চুমকি গৃহিণী হলেও দুদকে জমা দেয়া হিসাব বিবরণীতে তাকে মৎস্য খামারি হিসেবে দেখানো হয়েছে। ১৩ লাখ ৫০ হাজার টাকা মূলধনে শুরু করা মৎস্য খামারে চুমকি প্রতি বছর কোটি কোটি টাকা আয় করেছেন। মৎস্য চাষের লাভের টাকায় কিনেছেন চট্টগ্রাম নগরীতে জমি, গাড়ি-বাড়ি। হিসাব বিবরণীতে চুমকির স্থাবর সম্পত্তির মধ্যে রয়েছে- নগরীর পাথরঘাটা এলাকায় চার শতক জমি (দাম ৮৬ লাখ ৭৬ হাজার টাকা)। এ জমিতে গড়ে তোলা ৬ তলা ভবনের (মূল্য ১ কোটি ৩০ লাখ ৫০ হাজার),পাঁচলাইশে ২০১৫-১৬ অর্থবছওে কেনা হয় ৬ গন্ডা ১ কড়া জমি (দাম এক কোটি ২৯ লাখ ৯২ হাজার ৬০০ টাকা); ২০১৭-১৮ সালে কেনা হয় কক্সবাজারে ঝিলংজা মৌজায় ৭৪০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট (দাম ১২ লাখ ৩২ হাজার টাকা)। সব স্থাবর সম্পদের মূল্য দেখানো হয়েছে তিন কোটি ৫৯ লাখ ৫১ হাজার ৩০০ টাকা। এছাড়া অস্থাবর সম্পদের মধ্যে দেখানো হয়েছে- প্রাইভেটকার (দাম পাঁচ লাখ টাকা), মাইক্রোবাস (দাম সাড়ে ১৭ লাখ টাকা) ও ৪৫ ভরি স্বর্ণ। ব্যাংকে ৪৫ হাজার ২০০ টাকা দেখানো হয়েছে।

সূত্র : দৈনিক ইনকিলাব

About |

Check Also

insaf24-wednessday-21-october-20-601

insaf24-wednessday-21-october-20-6021