‘পুলিশ ও সেনাবাহিনীকে মুখোমুখি দাঁড় করানোর অপচেষ্টা চলছে’

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান টেকনাফে পুলিশের গুলিতে নিহত হওয়ার ঘটনায় একটি মহল অপপ্রচার চালিয়ে দুটি বাহিনীকে মুখোমুখি দাঁড় করানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে জানিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ পুলিশ সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন।

পুলিশ কর্মকর্তাদের সংগঠনটির পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গভীর বিস্ময় ও উদ্বেগের সঙ্গে লক্ষ্য করা যাচ্ছে যে, ঘটনাটিকে উপজীব্য করে একটি স্বার্থান্বেষী মহল ফেইসবুক, ইউটিউবসহ বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং কিছু প্রিন্ট এবং ইলেক্ট্রনিক মিডিয়াকে ব্যবহার করে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

একে দুঃখজনক ও অপ্রত্যাশিত আখ্যা দিয়ে অ্যাসোসিয়েশন জানায়, অতীতের মতো বাংলাদেশ পুলিশ এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মধ্যকার বিদ্যমান আস্থা, বিশ্বাস এবং আন্তরিক শ্রদ্ধাপূর্ণ সম্পর্ক অটুট থাকবে।

অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক নারায়ণগঞ্জের এসপি মোহাম্মদ জায়েদুল আলম দেশবাসীকে পুলিশের ব্যাপারে আশ্বস্ত করে বলেন, ব্যক্তির অপকর্মের দায় পুলিশ বহন করবে না।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে তারা বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত জাতীয় নির্বাচন সম্পন্ন করণ, রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন মেগা ইভেন্টে নিরাপত্তা প্রদানসহ প্রাকৃতিক দুর্যোগ, দুঃসময় ও যেকোনো ক্রান্তিকালে পুলিশ ও সেনাবাহিনী পারস্পরিক ভ্রাতৃত্ব সৌহার্দ্য, ও সম্প্রীতির আবহে একযোগে কাজ করে দেশ ও জনগণের সেবা করেছে। অতীতের ধারাবাহিকতায় এই দুই বাহিনী মুক্তিযুদ্ধ ও দেশপ্রেমের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে আগামীতেও দেশ ও মানুষের সেবায় একযোগে আন্তরিকভাবে কাজ করে যাবে।’