আমিরাতের পর সৌদি-ইসরাইল সম্পর্ক চান ট্রাম্পের ইহুদী জামাতা

আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জামাতা এবং হোয়াইট হাউসের জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা জ্যারেড কুশনার বলেছেন, তিনি শতভাগ আশাবাদী যে, সৌদি আরব ইসরাইলের সঙ্গে স্বাভাবিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা করবে।

বৃহস্পতিবার (১৩ আগস্ট) পূর্ণ সম্পর্ক স্থাপনের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেওয়ার মাধ্যমে ইহুদীবাদী সন্ত্রাসীদের অবৈধ রাষ্ট্র ইসরাইলকে স্বীকৃতি দেয় সৌদি আরবের মিত্র সংযুক্ত আরব আমিরাত।

আবুধাবির এ পদক্ষেপের বিষয়ে কোনো প্রতিক্রিয়া জানায়নি রিয়াদ। এর মধ্যেই জ্যারেড কুশনার এমন মন্তব্য করলেন।

আমিরাত জানায়, দেশটি ইসরাইলের সঙ্গে পূর্ণাঙ্গ কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপন করতে যাচ্ছে।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের অন্যতম ঘনিষ্ঠ মিত্র সৌদি আরব। তবে মিত্রদের সিদ্ধান্তে মন্তব্য থেকে বিরত থেকেছে রিয়াদ।

শুক্রবার (১৪ আগস্ট) কুশনার সিএনবিসি’কে দেওয়া সাক্ষাতকারে বলেন, ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার বিষয়টি সৌদি আরবের অত্যাবশ্যকীয়ভাবে অনুসরণ করা উচিৎ। আমি মনে করি, মধ্যপ্রাচ্যে মার্কিন অনেক মিত্রদেশ ইসরাইলের সঙ্গে সম্পর্কোন্নয়নে আগ্রহী। তার দাবি ইসরাইল এবং সৌদি আরবের মধ্যে স্বাভাবিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা অত্যন্ত জরুরি। তারা একসঙ্গে অনেক কিছু করতে পারে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

কুশনার বলেছেন, সময় নিয়ে নিজেরদের অবস্থান জানাতে পারে রিয়াদ।

জর্ডান-ইসরাইলের মধ্যে ১৯৯৪ সালে সই হওয়া কূটনৈতিক চুক্তির বিষয়টি উল্লেখ করে কুশনার বলেন, আমরা ঠিক ২৬ বছরে প্রথম শান্তি চুক্তি করেছি। এখন আপনারা বলছেন, সেই চুক্তি সঠিক ছিল। এ পথে আমরা আরো অনেককে অন্তর্ভুক্ত করতে চাই।

‘মধ্যপ্রাচ্যে সৌদি আরব অনেক বড় শক্তি। কিন্তু রাতারাতি পরিস্থিতি পাল্টানো যাবে না।’ বলেন কুশনার।