বেতন দিতে না পারায় ১৪৮ শিক্ষার্থীর ফলাফল আটকে দিল বিদ্যালয়

সিলেটে একটি বেসরকারি ইংরেজি মাধ্যম বিদ্যালয়ের প্রাক্‌-প্রাথমিক থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত ১৪৮ জন শিক্ষার্থীর বেতন বকেয়া পড়ায় বার্ষিক পরীক্ষার ফল আটকে দেওয়া হয়েছে।

করোনা মহামারির এই সময়ে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের এমন সিদ্ধান্তকে ‘অমানবিক’ আখ্যা দিয়ে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা এবং চলতি বছরের মার্চ থেকে জুনের শিক্ষার্থীদের বেতন মওকুফের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষার্থীদের অভিভাবকেরা।

জানা গেছে, সিলেটের ব্রিটিশ বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে ইংরেজি মাধ্যমে প্রাক্‌–প্রাথমিক থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষাদান হয়ে থাকে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৬১। বিদ্যালয়টিতে ব্রিটিশ কারিকুলামে জুলাই থেকে জুন শিক্ষাবর্ষ পরিচালিত হয়ে থাকে।

বিদ্যালয় পরিচালনায় অভিভাবক সদস্য আবদুল মুকিত জানান, গত ২৬ জুন শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের পক্ষ থেকে বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির বরাবরে লিখিত আবেদন জানানো হয়। সেখানে করোনা মহামারির চার মাসের বেতন আংশিক মওকুফ ও পরিশোধের সময় চেয়ে আবেদন জানানো হয়। এরপরও আজ রোববার বিদ্যালয়ের ১৪৮ শিক্ষার্থীর ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে।

আবদুল মুকিত জানান, করোনায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় পাঠদান বন্ধ ছিল। বিদ্যালয়ের অনলাইন ক্লাসও হয়নি। আবার অনেক অভিভাবকের করোনার কারণে কর্মক্ষেত্রও বন্ধ রয়েছে। এ জন্য অনেকে শিক্ষার্থীদের বেতন-ভাতা পরিশোধ করতে পারেননি।

এ ব্যাপারে বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ এ কে মাহমুদুল হক জানান, বেতন বকেয়া থাকায় বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী কিছু শিক্ষার্থীর ফলাফল স্থগিত করা হয়েছে। শিক্ষার্থীদের বকেয়া বেতন পরিশোধ করার পর ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. কয়সর জাহান জানান, শিক্ষার্থীদের বেতনের সঙ্গে শিক্ষক এবং অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতন–ভাতা জড়িত। এ জন্য শিক্ষার্থীদের অভিভাবকদের বেতন পরিশোধের ব্যাপারে বলা হয়েছে। অভিভাবকদের দেওয়া লিখিত আবেদন বিবেচনাধীন।