আয়াসোফিয়াকে নিয়ে নাক না গলাতে বিশ্বকে সতর্ক করে দিলেন এরদোগান

তুরস্কের ইস্তাম্বুল শহরের ঐতিহাসিক আয়া সোফিয়া-কে পুনরায় মসজিদে রূপান্তরের ঘোষণা দিয়েছিলেন মুসলিম বিশ্বের অন্যতম প্রধান নেতা ও দেশটির প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোাগান। তবে সেদেশের আদালতের রায় আসার পরই তা রূপান্তরের কার্যক্রম শুরু করবেন তিনি। গত বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) এ এব্যাপারে আদালতের যে রায় দেবার কথা ছিল, তা ১৫ দিনের জন্য পিছিয়ে দেয়া হয়েছে।

আয়া সোফিয়া নির্মিত হয়েছিল ষষ্ঠ শতাব্দীতে, তখনকার বাইজান্টাইন সাম্রাজ্যের অধিপতি সম্রাট প্রথম জাস্টিনিয়ানের নির্দেশে। প্রায় ১০০০ বছর ধরে এটিই ছিল পৃথিবীর সবচেয়ে বড় গির্জা। পরে ১৪৫৩ সালে যখন সুলতান মুহাম্মাদ ফাতেহের মাধ্যমে ইস্তাম্বুল অটোমান সাম্রাজ্যের দখলে চলে যায়, তখন একে পরিণত করা হয় মসজিদে। সেসময় থেকে ১৯৩০ এর দশক পর্যন্ত এটি ছিলো মুসলিম বিশ্বের অন্যতম মসজিদ। এর পর তুরস্ক থেকে ইসলাম নিশ্চিহ্ণ করে দেওয়ার পর ১৯৩৫ সালে কামাল আতাতুর্ক পাশা ঐতিহাসিক এ মসজিদটিকে জাদুঘরে পরিণত করে।


তুরস্কের ইসলামপস্থীরা বহুকাল ধরেই চাইছিলেন এটিকে আবার মসজিদে পরিণত করতে। কিন্তু ধর্মনিরপেক্ষ বিরোধীদলীয় এমপিরা এর বিরোধিতা করে আসছিলো। তা ছাড়া আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও আয়া সোফিয়াকে আবার মসজিদে পরিণত করার সমালোচনা করা হয়।তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বেশ কিছুকাল আয়া সোফিয়াকে আবার মসজিদে পরিণত করার কথা বলেন। গত বছর এক নির্বাচনী সভায় তিনি এই পরিবর্তন আনার আহ্বান জানান। এ মসজিদটি নিয়ে বরাবরের মতোই এরদোগান সমালোচনার সম্মুখীন।

তবে সম্প্রতি ইস্তাম্বুলের লেভান্ট অঞ্চলে একটি নতুন মসজিদের ভিত্তি প্রস্তর অনুষ্ঠানে এই সমালোচনাকে পাত্তা না দিয়ে উল্টো বহির্বিশ্বকে এ বিষয়ে নাক গলাতে নিষেধ করলেন এরদোগান। তিনি বলেন, সমগ্র বিশ্বে বিভিন্ন ধর্মের অনুসারীদের প্রার্থনাস্থলকে আমরা যেভাবে সম্মানের চোখে দেখি, তাদের থেকেও ঠিক এরকম আচরণই আশা করি। এটি নিয়ে তাদের কোন মতামত আমাদের জানার আগ্রহ নেই। আমাদের মসজিদ নিয়ে বহির্বিশ্বের কেউ গলাবাজি করলে আমরা সেটিকে তুরস্কের সার্বভৌমত্বের ওপর হামলা মনে করবো।