বিদেশি শিক্ষার্থী টানতে পারছে না ঢাবি

শিক্ষার মানের জন্য একদা ‘প্রাচ্যের অক্সফোর্ড’ হিসেবে অভিহিত করা হলেও সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তির সংখ্যা দিন দিন কমছে।

বিদেশি শিক্ষার্থীদের ভর্তির দীর্ঘায়িত প্রক্রিয়া, বিদেশি বান্ধব ক্যাম্পাস, আবাসন সুবিধার অভাব এবং ঢাকার শিক্ষাখাতে অন্যান্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়াকে দায়ী করছেন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। এছাড়া ঢাবিতে ভর্তি নিয়ে বিদেশি শিক্ষার্থীদের উদ্বেগ সমাধানে কর্তৃপক্ষের উদাসীনতাকেও দায়ী করছেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সহায়তা ডেস্ক থেকে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তির কোনো তথ্য পাওয়া না গেলেও বর্তমানে ঢাবির বিভিন্ন বিভাগ ও অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠানে প্রায় ৫,১৬০ বিদেশি শিক্ষার্থী এবং পে-রোল আওতায় ১৯ জন শিক্ষক নিযুক্ত আছেন বলে খোঁজ নিয়ে জানতে পেরেছে ইউএনবি।

স্যার পি জে হার্টজ আন্তর্জাতিক হলের সংযুক্তিতে ঢাবিতে বিদেশি শিক্ষার্থীরা ভর্তি হন।

হলের প্রভোস্ট ড. মহিউদ্দিনের দেওয়া তথ্যমতে, বর্তমানে হলটিতে ১১৭ জন বিদেশি শিক্ষার্থী রয়েছে। তন্মধ্যে ৩৮ জন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগে অধ্যয়নরত আর বাকিরা অধিভুক্ত মেডিকেল ইনস্টিটিউটে ভর্তি রয়েছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) বার্ষিক প্রতিবেদন অনুসারে, বাংলাদেশের ৫০টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে ২৩টিতে প্রায় ৮০৪ জন বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তি রয়েছেন। অন্যদিকে, দেশে ১০৩টি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩৭টিতে ১,৩৮৬ জন বিদেশি শিক্ষার্থী পড়াশুনা করছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলছে, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো চিরাচরিত এবং অনলাইন প্ল্যাটফর্মে বিজ্ঞাপনের প্রচারের মাধ্যমে বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তির সংখ্যা বাড়াচ্ছে।

ঢাবির আন্তর্জাতিক সম্পর্কিত কার্যালয়ের পরিচালক অধ্যাপক ইমতিয়াজ আহমেদ বলেন, ‘বিশ্বব্যাপী বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো যেভাবে বিজ্ঞাপন দেয় সেভাবে আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে দেয়া হয় না। ফলে, আমরা যে বিষয়গুলো পড়াই ও আমাদের যেসব ডিগ্রি কোর্স আছে সে সম্পর্কে বিদেশি শিক্ষার্থীরা জানে না। পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় বলে আমরা বিদেশি শিক্ষার্থীদের নজরে আসার জন্য মার্কেটিংয়ে লাখ লাখ টাকা ব্যয়ে বিশ্বাসী না।’

বিদেশি শিক্ষার্থীদের আকৃষ্ট করতে না পারার জন্য গণমাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে ‘নেতিবাচক মিডিয়া কভারেজকে’ দায়ী করেন এ অধ্যাপক।

তিনি বলেন, ‘অনেকের মধ্যে এ ভুল ধারণা আছে যে ঢাবিতে পড়াশোনা করার জন্য বাংলা জানতে হবে। অনেক বিভাগই শেখানোর মাধ্যম হিসেবে ইংরেজি ব্যবহার রয়েছে তা তারা জানেন না। আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের জন্য আলাদা খাবার সরবরাহ করার বিষয়েও তারা জানেন না।’

বিদেশি শিক্ষার্থীদের আকর্ষণে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের কৌশলগত বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনা করা দরকার বলে একমত হয়েছেন অধ্যাপক ইমতিয়াজ।

তিনি বলেন, ‘একজন বিদেশি শিক্ষার্থী ভর্তির জন্য প্রথমে আমাদের ওয়েবসাইটে ঢুকে অনলাইন প্রসপেক্টাস ও আমাদের সম্পর্কে তথ্যানুসন্ধান করবেন। দুর্ভাগ্যক্রমে, আমরা এখনও আন্তর্জাতিক মানের একটি অত্যাধুনিক পোর্টাল এবং প্রসপেক্টাস ডিজাইন করতে পারিনি।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের গৌরব অর্জন এবং আরও বিদেশি শিক্ষার্থীদের আকর্ষণ করার জন্য বিখ্যাত গবেষণা কাজগুলো তুলে ধরার উদ্যোগ নিয়েছি। তবে, পদোন্নতির জন্য শিক্ষকরা গবেষণা বা একাডেমিক কাজের চেয়ে রাজনীতির প্রতি বেশি মনোযোগী। এ প্রবণতা আমাদের নতুন গবেষণা করার ক্ষেত্রে একটি বড় বাধা হিসেবে কাজ করে চলেছে।’

সূত্র: ইউএনবি