পাকিস্তানে পৃথক দু’টি হামলায় সেনাসহ ২০ নিরাপত্তা সদস্য নিহত

পাকিস্তানে পৃথক দু’টি হামলায় নিরাপত্তা বাহিনীর ১৩ জন সদস্য এবং বেসরকারি সংস্থার সাতজন নিরাপত্তারকর্মীসহ অন্তত ২০ জন প্রাণ হারিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার বালুচিস্তানের গোয়াদার জেলা এবং উত্তর ওয়াজিরিস্তানে এসব হামলা হয। খবর সাউথএশিয়ানমনিটরের।

আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ বিভাগ (আইএসপিআর) জানায়, উত্তর ওয়াজিরিস্তানের রাজমাক এলাকায়, নিরাপত্তা বাহিনীর একটি গাড়িবহরের পাশে আইইডি’র বিস্ফোরণ ঘটলে এক ক্যাপ্টেনসহ পাকিস্তান সেনাবাহিনীর ছয় সদস্য প্রাণ হারায়।

নিহতরা হলেন, ২৪ বছর বয়সী ক্যাপ্টেন ওমর ফারুক, নায়েব সুবেদার রিয়াজ আহমেদ (২৭), নায়েব সুবেদার শাকিল আজাদ (৪৪), হাবিলদার ইউনুস খান (৩৬), নায়েক মোহাম্মদ নাদিম (৩৭) ও ল্যান্স নায়েক আসমত উল্লাহ (৩০)।

দ্বিতীয় ঘটনাটি ঘটে ওরমারায় মাকরান উপকূলীয় হাইওয়েতে। অয়েল অ্যান্ড গ্যাস ডেভলপমেন্ট কোম্পানি লি. (ওজিডিসিএল)-এর একটি কনভয়ের উপর সন্ত্রাসীরা গুলি চালালে ১৪ নিরাপত্তা রক্ষী নিহত হয়। কনভয়টি বন্দর নগরী গোয়াদার থেকে করাচি যাচ্ছিল।

আইএসপিআর জানায়, ওরমারার কাছে উপকূলীয় মহাসড়কে নিরাপত্তা সদস্য ও অজ্ঞাতদের মধ্যে বন্দুকযুদ্ধ হয়। এসময় ওজিডিসিএল-এর একটি কনভয় গোয়াদার থেকে করাচি যাচ্ছিল। সংঘর্ষে বালুচিস্তান ফ্রন্টিয়ার কর্পসের (এফসি) সাত সদস্য ও বেসরকারি সংস্থার সাত নিরাপত্তা কর্মী নিহত হয়।

নিরাপত্তা বাহিনী কার্যকরভাবে জবাব দেয় এবং আক্রান্ত ব্যক্তিদের ওই এলাকা থেকে নিরাপদে বের করে নিয়ে যেতে সক্ষম হয় বলে আইএসপিআর জানায়।

বালুচিস্তানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জিয়া ল্যাঙ্গোভ অবশ্য হামলার ঘটনায় ১৫ জন নিহত হয় বলে জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, সাত-আটজন হামলাকারী রকেট লঞ্চারসহ অন্যান্য ভারি অস্ত্র নিয়ে হামলা চালিয়েছে। তবে তারা সবাই পালিয়ে গেছে।

নিরাপত্তা বাহিনী এখন পুরো এলাকা ঘেরাও করে তাদের খোঁজে তল্লাশি চালিয়ে যাচ্ছে।