দেশবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জমিয়ত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মহাসচিব

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শায়েখ মাওলানা জিয়াউদ্দীন ও মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী জমিয়ত, যুব জমিয়ত, ছাত্র জমিয়ত নেতাকর্মী, শুভাকাঙ্খী এবং প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দসহ দেশবাসীর প্রতি পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন ।

শুক্রবার গণমাধ্যমে প্রেরিত এক যৌথ শুভেচ্ছা বার্তায় জমিয়তের শীর্ষনেতৃদ্বয় বলেন, পবিত্র ঈদুল আযহা মুসলিম মিল্লাতের জন্য মহান সৃষ্টিকর্তার তরে আত্মত্যাগ ও ভ্রাতৃত্ববোধ চর্চার জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন। কুরবানীর পশু যবাইয়ের মাধ্যমে মহান রবের প্রতি গভীর আনুগত্য প্রকাশ এবং কুরবানীর গোস্ত বিলানোর মাধ্যমে আত্মীয়-স্বজন, গরীব-মিসকীন ও পাড়াপ্রতিবেশীর সাথে পারস্পরিক সম্প্রীতি, সৌহার্দ, সহমর্মিতা বৃদ্ধির অনুশীলন ও কুরবানীর ত্যাগের মাধ্যমে মহান প্রভুর সন্তুষ্টি অর্জন করে।

শুভেচ্ছা বার্তায় জমিয়ত শীর্ষ নেতৃদ্বয় আরো বলেন, পবিত্র কুরবানী এককথায় বিশ্ব মুসলমানের ঐক্য, ভ্রাতৃত্ববোধ ও সহানুভূতি ছড়িয়ে দেওয়ার দিন। ত্যাগের এই মহান আনন্দের মাধ্যমে ঈদের পয়গাম ছড়িয়ে পড়ুক দেশ থেকে দেশান্তরে। পিছনের সকল দুংখ, গ্লানি, হতাশা মুছে সামনে এগিয়ে যাবার শপথ নিতে সকলের প্রতি আহবান জানান জমিয়ত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মহাসচিব।

জমিয়ত শীর্ষ নেতৃদ্বয় বলেন, এবারের কুরবানীতে মুসলমানদের আনন্দ-উদযাপন কাশ্মীর, ফিলিস্তিন, সিরিয়া, লিবিয়িা, ইরাক, আফগানিস্তান ও জিনজিয়াং অঞ্চলসহ সমগ্র বিশ্বের নির্যাতিত ভাই-বোনদের পরিস্থিতি ভারাক্রান্ত করবে। যখন সমগ্র বিশ্বব্যাপী মুসলিমানগণ ঈদের আনন্দ উদযাপন করবেন, তখন এসকল অঞ্চলের নিপীড়ীত মুসলিম ভাই-বোনরা চরম দুর্দশার সময় পার করবেন। জালিমরা তাদেরকে ঈদ উদযাপনটাও ঠিকমতো করতে দিবে না। আমরা সকলে দোয়া করব, পরম করুণাময় আল্লাহ যেন জালিমদেরকে পরাজিত করে নিপীড়ীত মুসলমানদেরকে বিজয়ী করেন।

তাঁরা বলেন, দেশের বিদ্যমান করোনা মহামারির ক্রান্তি-লগ্নে সব ভেদাভেদ ভুলে সবাইকে ঈদের আনন্দ নিজেদের ভাগ করে নিতে হবে। তাই ঈদুল আযহার ত্যাগের শিক্ষা থেকে আমাদের অঙ্গীকার হোক, সব হিংসা, বিদ্বেষ ও হানাহানি থেকে মুক্ত হয়ে ন্যায়, সাম্য, ঐক্য, ভ্রাতৃত্ব, দয়া, সহানুভূতি, মানবতা ও মহামিলনের এক ঐক্যবদ্ধ ও ভালোবাসাপূর্ণ সমাজ এবং দেশ গঠনের জন্য একযোগে কাজ করা।

জমিয়ত নেতৃদ্বয় বলেন, বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের আঘাতে এবারে হয়তো পূর্বের ন্যায় সবাইকে নিয়ে ঈদের আনন্দ উদযাপন করা সম্ভব হবে না। তবুও আমরা যে যেখানেই থাকি না কেন ঘনিষ্ঠজন, নিকটজনসহ সবাই ঈদের আনন্দ ভাগ করে নেব। কোনো অসহায় ও দুস্থ মানুষ যেন অভুক্ত না থাকে, কুরবানীর গোস্ত পাওয়া থেকে বঞ্চিত না হয়, সেজন্য যারা সচ্ছল ব্যক্তি তারা যেন তাদের পাশে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন, যাতে নিরন্ন মানুষরাও ঈদের আনন্দের অংশীদার হতে পারেন।

জমিয়ত ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও মহাসচিব আরও বলেন, করোনাভাইরাসের মহামারিতে এখন দেশবাসীর মনে বিরাজ করছে নিরানন্দ, ভয় ও আতঙ্ক। এই বিপদ থেকে রক্ষা করতে আমাদের সকলকে কায়মনোবাক্যে মহান রাব্বুল আলামীনের নিকট তাওবা-ইসতিগফার ও তাঁর করুণা ও দয়া কামনা করে বেশি বেশি দোয়া করতে হবে। পবিত্র এ দিনে বাংলাদেশের প্রতিটি গৃহে প্রবাহিত হোক সুখ-শান্তির অমিয় ধারা। পবিত্র ঈদুল আযহায় সমগ্র দেশবাসীর সুখ, শান্তি, সমৃদ্ধি, সুস্থ ও নিরাপদ থাকার জন্য বিশেষভাবে দোয়া করি।

শেয়ার করুণ
  •