মাস্ক পরতে বলায় বন্দুক তাক করল যুবক! অবশেষে আটক

বিশ্বের সুপার পাওয়ার খ্যাত আমেরিকায় প্রতিদিনই বাড়ছে করোনা আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। তবুও দেশটির নাগরিকদের খামখেয়ালিপনা কোনভাবে শেষ হচ্ছে না। স্বাস্থ্যবিধি মানা তো দূরের কথা সুরক্ষার জন্য মাস্কটাও ঠিকঠাক মতো ব্যবহার করছে না তারা। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বারবার মাস্ক পরারও ওপর গুরুত্ব দিতে বলেছে। তা না হলে বিশ্ব মৃত্যুপুরীতে পরিণত হতে পারে, এমন আশঙ্কা কথাও জানিয়েছিল সংস্থাটি।

এমন পরিস্থিতিতেও আমেরিকানদের আচরণের কোন পরিবর্তন হলো না। এবার ফ্লোরিডায় এক ব্যক্তিকে মাস্ক পরতে বলায় ঘটে গেলো
এক হীনকাণ্ড। মাস্ক পরতে বলা ক্রেতার মাথায় বন্দুক তাক করলেন ভিনসেন্ট স্ক্যাভেত্তা নামের এক ক্রেতা।

বন্দুকের বৈধ লাইসেন্স থাকলেও ছাড় পাননি ২৮ বছরের ওই যুবক। প্রাণঘাতী অস্ত্রের অযাচিত প্রদর্শনের জন্য জেলে যেতে হয়েছে স্ক্যাভেত্তাকে।

পুলিশের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, পাম বিচ কারাগারে স্বাগতম। এই ঘটনা থেকে শিক্ষা নেওয়া উচিত। ভয়ঙ্কর কিছু ঘটতে পারতো।

জানা গেছে, গত ২০ জুলাই থেকে ওয়ালমার্টে আসা ক্রেতাদের জন্য মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়। এরপরও স্ক্যাভেত্তার মুখে মাস্ক না দেখে তাকে তা পরতে বলেন আরেক ক্রেতা। তখনই তর্কাতর্কি শুরু হয়। এক পর্যায়ের নিজের কোমড়ে থাকা বন্দুক বের করে তার মাথায় তাক করার আগে বলেন, আমি তোমাকে মেরে ফেলবো। দোকানকর্মীদের হস্তক্ষেপে শেষ পর্যন্ত তাদের ছাড়ানো হয়।


তবে পরে ভিডিও ফুটেজ দেখে অস্ত্রধারী স্ক্যাভেত্তাকে শনাক্ত করে দেশটির পুলিশ কার্যালয়ে ডাকা হয় এবং তার স্বীকারোক্তির পর গ্রেফতার করা হয়।