বাবরি মসজিদ ধ্বংসে হিন্দুত্ববাদীদের উসকে দেওয়ার দায় স্বীকার করছে না বিজেপির সাবেক নেতা

ভারতের অযোধ্যায় প্রায় পাঁচশত বছরের ঐতিহাসিক বাবরি মসজিদকে ১৯৯২ সালে শহীদ করে হিন্দু সন্ত্রাসীরা। এ ধ্বংসকাণ্ডে দেশটির ক্ষমতাসীন হিন্দুত্ববাদী বিজেপি ও শিবসেনা প্রকাশ্য জড়িত।

বিজেপির সাবেক সভাপতি মুরলী মনোহর যোশি। ১৯৯২ সালে অযোধ্যায় শহীদ বাবরি মসজিদ ধ্বংস মামলায় নিজেকে নিরপরাধ বলে দাবি করেন তিনি। গত বৃহস্পতিবার (২৩ জুলাই) মামলার শুনানিতে হিন্দুত্ববাদী বিজেপির এই নেতাকে ১০৫০টি প্রশ্ন করেন বিচারক।

১৯৯২ সালে হিন্দু সন্ত্রাসীদের হাতে শহীদ হলেও বাবরি মসজিদ মামলায় তাকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হয়েছে বলে দাবি করেন যোশি। তার দাবি, তদন্ত প্রক্রিয়ার ওপর রাজনৈতিক চাপ ছিল এবং মিথ্যা সাক্ষ্য-প্রমাণ সাজিয়ে তাকে ফাঁসানো হয়েছে।’ বিশেষ সিবিআই আদালতের বিচারক এসকে যাদবের প্রশ্নের উত্তরে উগ্র হিন্দুত্ববাদী এই নেতা দাবি করেন, সব সাক্ষীরা মিথ্যাবাদী। রাজনৈতিক কারণে এবং পুলিশের চাপের মুখে পড়ে তারা সবাই মিথ্যা কথা বলেছে।

এই বিষয়ে ১৯৯১ সালের ২৬ জুন তোলা বাবরি মসজিদ হিসেবে পরিচিত স্থানে মুরলী মনোহর যোশির সঙ্গে উত্তর প্রদেশের তত্‍কালীন মুখ্যমন্ত্রী কল্যাণ সিং-এর একটি ছবি তাকে দেখান বিচারক। এই ছবিটির ব্যাখ্যা যোশির কাছে চাওয়া হয়। তবে এই ছবির কোনো উত্তর দিতে পারেনি যোশি।

এই বিষয়ে সংবাদপত্রের বেশ কিছু পুরনো কাটিং তাকে দেখান বিচারক। সেই সব খবরে লালকৃষ্ণ আদভানী এবং উগ্র হিন্দুত্ববাদী শিবসেনার প্রয়াত নেতা বালা ঠাকরে রাম জন্মভূমি নিয়ে বক্তব্য রেখেছেন। এই সব খবর সম্পর্কে তার প্রতিক্রিয়া জানতে চান বিচারক। উত্তরে যোশি আবারো দাবি করেন, সব খবর মিথ্যা। রাজনৈতিক চাপে পড়ে ভুয়া খবর প্রকাশ করা হয় বলে দাবি করেন তিনি।

এক সাক্ষীর বয়ানকে উদ্ধ‌ৃত করে সিবিআই বিচারক যোশির কাছে জানতে চান যে, ১৯৯১ সালের ২৫ জুন কল্যাণ সিং উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেন। পরের দিনই তিনি বাবরি মসজিদ হিসেবে পরিচিত স্থানে যান। সেখানে তিনি স্লোগান দেন ‘রাম লালা হাম আয়েঙ্গে, মন্দির এহি বানায়েঙ্গে।’ এই বিষয়ে যোশির প্রতিক্রিয়া জানতে চান বিচারক। জবাবে যোশির দাবি, কল্যাণ সিং রাম জন্মভূমিতে গেলেও বাকি সবকিছু মিথ্যা।


তবে বাবরি মসজিদ শহীদ করতে হিন্দু সন্ত্রাসীদের ওসকে দেওয়ার পেছনে বিজেপির সাবেক এই নেতার হীন ভূমিকা আদালতে প্রকাশ পেলেও তিনি তাকে ষড়যন্ত্র বলে নিজেকে নির্দোষ বানানো চেষ্টা করছেন বরাবরের মতো।

সূত্র: ইন্ডিয়া টাইমস।

About |

Check Also

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সত্বেও রাশিয়া থেকে এস-৪০০ কিনবে তুরস্ক

মার্কিন নিষেধাজ্ঞা সত্বেও রাশিয়া থেকে এস-৪০০ বিমানবিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা ক্রয় করা থেকে ফিরবে না …