স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী মারা গেছেন

স্বেচ্ছাসেবক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শফিউল বারী বাবু ইন্তেকাল করেছেন। ইন্না লিল্লাহী ওয়া-ইন্না ইলাইহী রাজিউন।

আাজ মঙ্গলবার (২৮ জুলাই) ভোর ৪টায় রাজধানীর এভার কেয়ার (সাবেক অ্যাপোলো) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন তিনি মারা যান।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

শফিউল বারী স্ত্রী, এক ছেলে ও এক মেয়ে রেখে গেছেন।

এর আগে সোমবার দিবাগত রাত ১টা ৫২ মিনিটে শফিউল বারী বাবুকে আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতাল থেকে এভার কেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে স্থানান্তর করা হয়।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতি গোলাম সারোয়ার জানান, প্রচণ্ড শ্বাসকষ্ট থাকায় শফিউল বারী বাবুকে সোমবার বেলা ১১টায় তাৎক্ষণিকভাবে রাজধানীর ধানমণ্ডির আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। গত বেশ কিছু দিন ধরে ফুসফুসের সংক্রমণে ভুগছিলেন তিনি।

তিনি আরও বলেন, ফুসফুসে সংক্রমণজনিত কারণে শফিউল বারীর শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। চিকিৎসকের পরামর্শে তিনি রাজধানীর ইস্কাটনের বাসাতেই ছিলেন। কিন্তু সোমবার হঠাৎ করে তার শ্বাসকষ্ট আরও বেড়ে গেলে দ্রুত তাকে আনোয়ার খান মডার্ন মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরে চিকিৎসকের পরামর্শে হাসপাতালে তার করোনা পরীক্ষা করা হলে ফল নেগেটিভ আসে বলে জানান স্বেচ্ছাসেবক দলের সহসভাপতি গোলাম সারোয়ার।

বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, শফিউল বারী বাবুর করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট নেগেটিভ ছিল। সোমবার রাতে তাকে হাসপাতালে নেয়া হলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব-উন নবী খান সোহেল, স্বেচ্ছাসেবক দল সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল, প্রকৌশলী ইশরাক হোসেন, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসিন আলীসহ অনেকে সেখানে গিয়ে খোঁজখবর নেন।


সকালে শফিউল বারী বাবুর লাশ মোহাম্মদপুর আল মারকাজুল ইসলামীয়ায় গোসল করানো হয়। এর পর গোসল শেষে ৪৫ নিউ ইস্কাটন বিএমএর গলিতে মরহুমের বাসায় লাশবাহী গাড়ি রাখা হয়।