বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবির ঘটনায় বিআইডব্লিউটিএ-র চরম অব্যবস্থাপনা দায়ি: ইশা ছাত্র আন্দোলন

ইসলামী শাসনতন্ত্র ছাত্র আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সভাপতি এম. হাছিবুল ইসলাম এবং সেক্রেটারি জেনারেল নূরুল করীম আকরাম এক যৌথ বিবৃতিতি বলেছেন, করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে দেশে যখন শোকাবহ অবস্থা বিরাজমান এমতাবস্থায় শতাধিক পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এল বুড়িগঙ্গায় মর্নিং বার্ড লঞ্চডুবির ঘটনায়। প্রায়শই দেখা যায় বুড়িগঙ্গা নদীতে একাধিক লঞ্চ প্রতিযোগীতামূলকভাবে চলছে। এসব ঘটনায় বিআইডব্লিউটিএ-র সুষ্ঠু তদারকি না থাকায় আজ কেরানীগঞ্জের ডকইয়ার্ডটি অসতর্ক হয়ে এমন ঘটনার জন্ম দিল।

সোমবার (২৯ জুন) সংবাদমাধ্যমে প্রেরিত এক শোকবার্তায় তারা এসব কথা বলেন।

ইশা ছাত্র আন্দোলনের নেতৃদ্বয় বলেন, গণমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে যে সকাল পৌনে ৮টার দিকে মর্নিং বার্ড লঞ্চটি অর্ধশতাধিক যাত্রী নিয়ে মুন্সীগঞ্জ থেকে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। পথে ফরাশগঞ্জ এলাকায় একটি ডকইয়ার্ড থেকে মেরামত শেষে নদীতে নামানোর সময় ময়ূর-২ নামের লঞ্চের সঙ্গে ধাক্কা লাগলে ডুবে যায় সেটি। এই ঘটনাকে সাধারণ কোনো দুর্ঘটনা বলে চালিয়ে দিলে চলবে না বরং অসতর্ক হয়ে লঞ্চ নামানোর মাধ্যমে গণহত্যা করা হয়েছে।

আমরা এই ঘটনায় প্রথমত বিআইডব্লিউটিএ চেয়ারম্যানের পদত্যাগ দাবি করছি। ডকইয়ার্ড কর্তৃপক্ষকে দ্রুত বিচার আইনের আওতায় শাস্তির দাবি করছি এবং নিহতদের পরিবারকে সর্বোচ্চ ক্ষতিপূরণ দেওয়ার দাবি জানাচ্ছি। পাশাপাশি ভবিষ্যতে নৌ দুর্ঘটনা এড়াতে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারের প্রতি আহবান জানাচ্ছি।