সাত জেলায় পৃথক ঘটনায় পানিতে ডুবে নিহত ১৪

পটুয়াখালী, মানিকগঞ্জ, লালমনিরহাট, বগুড়া, পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম এবং চাঁপাইনবাবগঞ্জে সোমবার বিকাল থেকে মঙ্গলবার বিকাল পর্যন্ত পৃথক ঘটনায় পানিতে ডুবে ১৪ জন নিহত হয়েছেন।

ইউএনবির জেলা প্রতিনিধিদের পাঠানো খবরে এ তথ্য জানা গেছে।

পটুয়াখালীর প্রতিনিধি জানান, জেলার বাউফলে পুকুরে গোসল করতে গিয়ে পানিতে ডুবে তিন বোনের মৃত্যু হয়েছে।

উপজেলার কালাইয়া ইউনিয়নের কর্পূরকাঠী গ্রামে সোমবার সন্ধ্যায় তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

আরও পড়ুন:বগুড়ায় নৌকা ডুবে মা-ছেলের মর্মান্তিক মৃত্যু

মৃতরা হলো ওই গ্রামের মোকলেচুর রহমানের মেয়ে মাহফুজা (১৫) ও মরিয়াম (১৪) এবং মোকলেচের ছোট ভাই রাজ্জাকের মেয়ে মারিয়া (১১)।

স্থানীয়রা জানান, তিন বোন দুপুর ২টার দিকে গোসল করতে পুকুরে যায়। কিন্তু গোসল করে ফিরে না আসায় পরিবারের লোকজন প্রথমে ধারণা করেছিল যে তারা হয়ত আশপাশে কোথাও ঘুরতে গেছে। কিন্তু বেলা শেষে তারা ঘরে ফিরে না আসায় খোঁজাখুঁজি শুরু হয়।

সন্ধ্যার দিকে পুকুর পাড়ে তিনজনের জামাকাপড় ও জুতা দেখতে পেয়ে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। পরে বাড়ির লোকজন পুকুরে নেমে তল্লাশি চালিয়ে তিন বোনের মরদেহ উদ্ধার করে।

এদিকে, মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার চরমাস্তল চরপাড়া এলাকায় মঙ্গলবার নৌকাডুবির ঘটনায় তিন ভাই-বোনের মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় আরও দুই শিশু নিখোঁজ রয়েছে।

নিহতরা হলেন- হনুফা (৩৭) তার, বোন রোকসানা (৩০) ও ভাই রিয়াজুল (২৫)।

স্থানীয় ব্যবসায়ী আওলাদ হোসেন জানান, চরমাস্তল চরপাড়া বিলে ঝড়ের সময় দুপুর পৌনে ২টার দিকে নৌকাডুবির ঘটনা ঘটে। এতে নৌকার মাঝি হনুফার বোনের ছেলে মনির ও হনুফার স্বামী আব্দুল হক জীবিত উদ্ধার হয়েছেন। নিখোঁজ রয়েছে হনুফার মেয়ে মিথিলা (১২) ও রোকসানার ছেলে শান্ত (১১)।

লালমনিরহাটে স্ত্রীসহ মামার বাড়ি বেড়াতে এসে মঙ্গলবার নদীতে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে মৃত্যু হয়েছে এক নব দম্পতির।

তারা হলেন- রংপুর শহরের বাহারকাছনা এলাকার মকবুল হোসেনের ছেলে আনোয়ারুল ইসলাম (২২) ও তার স্ত্রী সুমাইয়া আক্তার বৃষ্টি (১৯)।

লালমনিরহাট সদর থানার ওসি মাহফুজ আলম জানান, আনোয়ারুল ইসলাম তার নব বিবাহিত স্ত্রীকে নিয়ে লালমনিরহাট সদর উপজেলার রাজপুর ইউনিয়নের জগৎবের এলাকায় মামা আব্দুল কাদেরের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। সকালে মামার বাড়ির পাশে সতী নদীতে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে যান তারা। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা বিকালে ওই নদী থেকে নব দম্পতির লাশ উদ্ধার করেন।

ইউএনবির বগুড়ার প্রতিনিধি জানান, জেলার আদমদীঘিতে মঙ্গলবার ঈদের নিমন্ত্রণে যাওয়ার পথে নৌকা ডুবে মা-ছেলের মৃত্যু হয়েছে।

তারা হলেন- জেলার আদমদীঘি উপজেলার সান্দিরা গ্রামের শহীদ হোসেনের স্ত্রী চাঁদনী বেগম (৩০) ও তার ছেলে সাদ (৭)।

আদমদীঘি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জালাল উদ্দীন জানান, মঙ্গলবার বেলা ১২টার দিকে উপজেলার সান্দিড়া গ্রামের প্রায় ২০ জন নারী, পুরুষ ও শিশু নৌকা চড়ে বিল পাড়ের করজবাড়ী গ্রামে আত্মীয়ের বাড়ি যাচ্ছিলেন। নৌকাটি বিলের মাঝামাঝি স্থানে গেলে নৌকার পাটাতন (তলা) হঠাৎ ফেটে যায় এবং যাত্রীসহ বিলের পানিতে ডুবে যায়।মৃতরা হলো-তেঁতুলিয়া উপজেলার শালবাহান ইউনিয়নের বড় দলুয়াগছ গ্রামের মো. মোমিনের ছেলে মো. নয়ন ও আটোয়ারী উপজেলার তোড়িয়া ইউনিয়নের কাটালি গ্রামের মোস্তাফিজুর রহমানের ছেলে সার্বির হোসেন (২)।

নয়নের পরিবার ও এলাকাবাসী জানায়, বাড়িতে খুঁজে না পাওয়ায় এক পর্যায়ে পাশের পুকুরে পানিতে নয়নকে ভাসতে দেখা যায়। স্থানীয়দের সহযোগিতায় পরিবারের লোকজন তাকে উদ্ধার করে তেঁতুলিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. পলাশ চন্দ্র সাহা তাকে মৃত ঘোষণা করে।

অন্যদিকে তেঁতুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জহিরুল ইসলাম জানান, সার্বিরকে বাড়ির পাশ্ববর্তী পুকুরে ভাসতে দেখে স্থানীয়দের সহযোগিতায় শিশুটিকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলার বেগমগঞ্জ ইউনিয়নের মিয়াজী পাড়া গ্রামে মঙ্গলবার পুকুরের পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

মৃত নূরাইয়া খাতুন (৩) ওই এলাকার নুর আলমের মেয়ে।

গ্রাম পুলিশ কোবাদ আলী জানান, মঙ্গলবার দুপুরে নূরাইয়া খাতুন সবার অজান্তে ঘরের পাশে পুকুরের পানিতে পড়ে যায়। বাড়ির লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজির পর বিকাল ৪টার দিকে পুকুর থেকে শিশুটির মৃতদেহ উদ্ধার করে।

এছাড়া, চাঁপাইনবাবগঞ্জে গোমস্তাপুর উপজেলার নয়াদিয়াড়ী ঘাট এলাকা থেকে মঙ্গলবার দুপুরে ৮ বছরের শিশু ফয়সালের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

এর আগে সোমবার মহানন্দা নদীতে গোসল করতে নেমে সে নিখোঁজ হয়।

মৃত ফয়সাল শিবগঞ্জ উপজেলার বালুচর গ্রামের বদিউর রহমানের ছেলে।

চৌডালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শাহ আলম জানান, শিশু ফায়সাল তার নানার বাড়ি উদয়নগর গ্রামে বেড়াতে এসেছিল। সোমবার দুপুর পৌনে ১২টার দিকে সে বাড়ির কাছে মহানন্দা নদীতে গোসল করতে নেমে নিখোঁজ হয়। রাজশাহী থেকে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল এসে রাত ৮টা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চালালেও তাকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে নয়াদিয়াড়ী ঘাট এলাকায় শিশুটির লাশ ভাসতে দেখে স্থানীয়রা উদ্ধার করে।

সূত্র: ইউএনবি

About |

Check Also

রায়হানের বাড়িতে পুলিশ সদর দপ্তরের তদন্ত দল

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের (এসএমপি) বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ‘পুলিশি নির্যাতনে’নিহত রায়হান আহমদের আখালিয়ার নেহারীপাড়াস্থ বাসায় তার পরিবারের …