কারখানা চালু: চরম মূল্য দিতে হবে হুঁশিয়ারি বঙ্গবন্ধু মেডিকেলের উপাচার্যের

মহামারী করোনাভাইরাসের (কোভিড ১৯) সামাজিক সংক্রমণ যখন খারাপের দিকে যাচ্ছে, ঠিক তখন কারখানাগুলো পুনরায় চালু করার সিদ্ধান্ত যথার্থ নয় বলে মন্তব্য করেছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক কনক কান্তি বড়ুয়া।

তিনি বলেন, ‘আমরা এখনো লকডাউন যথাযথভাবে প্রয়োগ এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে মানুষজনকে বাধ্য করতে পারিনি। মানুষ এখনো এখানে সেখানে ঘুরে বেড়াচ্ছে। এমন পরিস্থিতিতে, আমরা যদি কারখানাগুলো আবার চালু করি, আমাদের চরম মূল্য দিতে হবে।’

বিএসএমএমইউ উপাচার্য বলেন, ‘ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও গাজীপুর করোনাভাইরাসের হটস্পট (সবচেয়ে বেশি সংক্রমিত এলাকা), যেখানে বেশিরভাগ কারখানা অবস্থিত। আমরা যদি এসব এলাকার শ্রমিকদের কারখানায় কাজ করার অনুমতি দেই, তবে ভাইরাসটি ভয়াবহ আকারে ছড়িয়ে পড়বে। করোনা আক্রান্ত কর্মীর মাধ্যমে অন্য সব সহকর্মীদের মধ্যে ভাইরাসটি সংক্রমিত হতে পারে।’

ড. কনক উল্লেখ করেন, ‘সম্প্রতি করোনার কোনো উপসর্গ ছাড়াই এ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এমনকি আমাদের অনেক ডাক্তার ও নার্স সতর্ক থাকা সত্ত্বেও এবং মাস্ক ও পিপিই (ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম) পরেও করোনা সংক্রমিত হচ্ছে। সেজন্য আমরা যদি আমাদের কর্মীদের কারখানায় কাজ করার অনুমতি দেই, তাহলে আমরা দেশের জন্য একটি বিরাট বিপদ ডেকে আনব। করোনার সংক্রমণ যেভাবে বাড়ছে আমরা পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার বিষয়ে উদ্বিগ্ন।’

মূলত করোনা পরিস্থিতির মধ্যে রপ্তানিমুখী কারখানাগুলো খোলার বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাতের উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এসব কথা বলেন বিএসএমএমইউ উপাচার্য।

গত শনিবার এফবিসিসিআই আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেসরকারি খাতের উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, ‘অর্থনীতি বাঁচানোর জন্য প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে দেশের রপ্তানিমুখী কারখানাগুলো অবশ্যই ধীরে ধীরে আবার চালু করতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের একটি সিদ্ধান্ত নিতে হবে। আমরা সুইডেন মডেল আমাদের সামনে রেখেছি, তারা লকডাউন প্রয়োগ করেনি। চীনের উহানে করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ধাপ চলছে। জার্মানি ও ফ্রান্স এখনো ভুগছে, নতুন সংক্রমণ ও মৃত্যুর ঘটনা ঘটছে। তবে তারা এরইমধ্যে তাদের কারখানা চালু করছেন।’