উইঘুর মুসলমানদের জন্য বন্দিশালা নির্মাণকাজ অব্যাহত রাখতে মত দিয়েছিলো ট্রাম্প

চীনে ভয়ংকর নির্যাতনের শিকার উইঘুর মুসলমানদের মানবাধিকারবিষয়ক এক বিলে সই করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

বুধবার (১৭ জুন) ‘উইঘুর হিউম্যান রাইটস পলিসি অ্যাক্ট, ২০২০’ নামে ওই বিলে সই করেন তিনি।

তবে তিনি যেদিন উইঘুর মুসলমানদের স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট এই বিলে সই করলেন, ঠিক ওইদিনই অর্থাৎ গতকালই এক মন্তব্য করেছেন ট্রাম্পের সাবেক নিরাপত্তা উপদেষ্টা জন বোল্টন। তিনি বলেছেন, চীনে বিতর্কিত ডিটেনশন ক্যাম্পের নির্মাণ চালিয়ে যাওয়ার জন্য প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংকে অনুরোধ করেছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

জন বোল্টনের আসন্ন একটি বইয়ের উদ্ধৃতি দিয়ে এ তথ্য প্রকাশ করেছে নিউইয়র্কভিত্তিক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল।

বইয়ে জন বোল্টন দাবি করেছেন, গতবছর জি২০ সম্মেলন চলাকালে ডিনারে অংশ নিয়ে চীনা প্রেসিডেন্টকে এ অনুরোধ জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

জন বোল্টন তার প্রকাশিতব্য বইয়ে দাবি করেছেন, ‘(ওইদিন) দোভাষীদের উপস্থিতিতে ট্রাম্পের কাছে জিনজিয়াংয়ে ডিটেনশন ক্যাম্প নির্মাণের পক্ষে তার যুক্তি তুলে ধরেন শি। আমাদের দোভাষীর তথ্যমতে, ট্রাম্প বলেছিলেন, শি’র উচিত ক্যাম্পের নির্মাণকাজ চালিয়ে যাওয়া আর ট্রাম্পও মনে করেছিলেন চীন ঠিক কাজটিই করছে।’

‘(যুক্তরাষ্ট্রের) জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের এশিয়াবিষয়ক শীর্ষ কর্মকর্তা ম্যাথিউ পটিংজার আমাকে বলেছিলেন, (ট্রাম্পের) ২০১৭ সালের নভেম্বরে চীন সফরে বিশেষ কিছু হয়েছে’-বইয়ে লিখেছেন সাবেক নিরাপত্তা উপদেষ্টা বোল্টন।

আমেরিকার পররাষ্ট্রবিষয়ক দফতর বলছে, চীনে নির্মিত ডিটেনশন ক্যাম্পে ১০ লাখেরও বেশি উইঘুর, কাজাক, কিরগিজ ও অন্যান্য সংখ্যালঘু মুসলিম সম্প্রদায়কে বন্দি করে রাখা হয়েছে। এসব ক্যাম্পে বন্দিদের ওপর অমানবিক শারীরিক ও যৌন নির্যাতন, জোরপূর্বক শ্রমে নিয়োজিত করা ও নির্যাতনের মেরে ফেলার অভিযোগ রয়েছে।

সূত্র: সিএনএন