৪৮ ঘণ্টায় আসার কথা করোনার কিট, আসেনি ১৪৪ ঘণ্টায়ও

ছয়দিন আগে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে চট্টগ্রামের ইনস্টিটিউট অব ট্রপিক্যাল অ্যান্ড ইনফেকসাস ডিজিজেজ (বিআইটিআইডি) হাসপাতালে করোনাভাইরাস শনাক্তকারী কিট পৌঁছানোর ঘোষণার পর পেরিয়ে গেছে ১৪৪ ঘণ্টারও বেশি সময়।

প্রশিক্ষণের জন্য বিআইটিআইডি থেকে যে তিনজনকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছিল, প্রশিক্ষণ দিয়ে ফেরত পাঠানো হয়েছে তাদেরও। তবে চট্টগ্রামের জন্য করোনাভাইরাস শনাক্তকারী কিট পৌঁছায়নি।

আজ মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) বেলা ১১টার দিকে চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. সেখ ফজলে রাব্বি মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, করোনার কিট পাঠানো হয়নি। বিআইটিআইডি থেকে মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের একজন ডাক্তার এবং দুইজন টেকনিশিয়ানকে প্রশিক্ষণের জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছিল। তাদের শুধু প্রশিক্ষণ দিয়েই পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে।

সিভিল সার্জন আরও বলেন, আজ (মঙ্গলবার) থেকে সবকিছু সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে চলে যাচ্ছে। এখন যা করার তারাই করবেন, আমরা তাদের সাহায্য করব।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) দুপুরে চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবিলা-সংক্রান্ত বিভাগীয় কমিটির সভায় চট্টগ্রাম বিভাগীয় স্বাস্থ্য অধিদফতরের পরিচালক ও করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবিলায় গঠিত বিভাগীয় কমিটির সদস্য সচিব ডা. হাসান শাহরিয়ার কবীর জানান, চট্টগ্রাম থেকে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ নির্ণয় করা হবে।

এ লক্ষে আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে হাসপাতালে প্রয়োজনীয় সংখ্যক করোনাভাইরাস শনাক্তকারী কিট ও স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে জড়িত চিকিৎসক-নার্স কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুসারে পার্সোনাল প্রটেকশন (পিপিই) পাঠানো হবে।

একই সভায় ২৫০ শয্যার জেনারেল হাসপাতালটিকে পুরোপুরিভাবে করোনা রোগীদের জন্য প্রস্তুত করার ঘোষণা দয়া হলেও নির্ভরযোগ্য সূত্র বলছে, সেখানে এখনো মাত্র ১০০ বেড করোনা রোগীদের জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে।

Previous post প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশের কারণেই খালেদাকে মুক্তি মিলছে: আইনমন্ত্রী
Next post কক্সবাজারে করোনা রোগী শনাক্ত, সংক্রমণের ঝুঁকিতে ২২ ডাক্তার-নার্স