করোনাভাইরাস সত্ত্বেও জুন মাসে ১০১ নারী ও শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে

ক‌রোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের মধ্যেও গত জুন মাসে মোট ৩০৮ জন নারী ও কন্যাশিশু নির্যাতিত হয়েছে বলে জা‌নি‌য়ে‌ছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। এর মধ্যে ১০১ জন নারী ও কন্যাশিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে।

আজ বুধবার (১ জুলাই) গণমাধ‌্যমে পাঠা‌নো এক বিবৃতি‌তে এ তথ‌্য জানায় সংগঠন‌টি।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের লিগ্যাল এইড উপ-পরিষদে সংরক্ষিত ১৪টি দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে এ তথ‌্য উঠে এসেছে বলে জানানো হয়।

বিবৃ‌তি‌তে জানা‌নো হয়, পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ অনুসারে ২০২০ সালের জুন মাসে মোট ৩০৮ জন নারী ও কন্যা নির্যাতনের শিকার হয়েছে। ধর্ষণের শিকার হয়েছে মোট ১০১ জন, এর মধ্যে গণধর্ষণের শিকার হয়েছে ২৫ জন, ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ৭ জনকে।

এছাড়া, ধর্ষণের চেষ্টা করা হয়েছে ১৫ জনকে, শ্লীলতাহানির শিকার হয়েছে ৩ জন, যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছে ৬ জন। এসিডদগ্ধের শিকার হয়েছে ১ জন, অগ্নিদগ্ধের শিকার হয়েছে ৪ জন, এর মধ্যে অগ্নিদগ্ধের কারণে মৃত্যু হয়েছে ৩ জনের।

সংগঠনটি আরো জানায়, অপহৃত হয়েছে মোট ১৪ জন। পতিতালয়ে বিক্রি করা হয় ১ জনকে। বিভিন্ন কারণে ৬২ জন নারী ও কন্যাশিশুকে হত্যা করা হয়েছে। যৌতুকের কারণে হত্যা করা হয়েছে ৫ জনকে।

২ গৃহপরিচারিকাকে হত্যা করা হয়েছে এবং ১ গৃহপরিচারিকা আত্মহত্যা করেছে। যৌতুকের কারণে নির্যাতন করা হয়েছে ৭ জনকে। শারীরিক নির্যাতনের শিকার হয়েছে ১৯ জন। উত্ত্যক্ত করা হয় ৫ জনকে।

বিভিন্ন নির্যাতনের কারণে ১৭ জন আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়েছে। ৩৪ জনের রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। ফতোয়ার শিকার হয়েছে ১ জন। বাল্যবিবাহ হয়েছে ১ জনের। এছাড়া, নানাভাবে নির্যাতনের শিকার হয়েছে ২ নারী ও শিশু।

Previous post আইসিইউতে সাহারা খাতুন, কাল পরশু থাইল্যান্ড নেয়া হতে পারে
Next post কাশ্মীরে মুসলমানদের চিত্র বদলানোর পদক্ষেপ; এখনই ভারতকে জবাবদিহিতার আওতায় আনতে হবে