১৪ বছর চুপ ছিলাম, এবার কথা বলবো: মাহী বি চৌধুরী

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


বিকল্পধারার প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহী বি চৌধুরী এমপি বলেছেন, ২০০৪ সালে বিএনপি থেকে পদত্যাগের পর প্রতিনিয়ত রাজনীতির শিষ্টাচার লঙ্ঘন করে তারা অশ্লীল ভাষায় একতরফাভাবে অভিযোগ করে গেছে। আমি সংসদে থেকেও সে অভিযোগ খণ্ডন করার সুযোগ পাইনি। আজ ১৪ বছর পর সংসদে ফিরছি। অনেক দিন চুপ করে ছিলাম। এবার ৩০ জানুয়ারি সংসদে গিয়ে সেদিনের অপমানের কথা বলব।

রোববার রাজধানীতে বিকল্পধারার নির্বাচিত দুই সংসদ সদস্যকে দলের পক্ষ থেকে দেয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।এদিন বিকল্পধারার মহাসচিব মেজর (অব.) আবদুল মান্নান ও প্রেসিডিয়াম সদস্য মাহী বি চৌধুরীকে দলের পক্ষ থেকে সংবর্ধনা দেয়া হয়। এ দুজন একাদশ সংসদ নির্বাচনে মহাজোটের মনোনয়নের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন।

মাহী বলেন, ২০০২ সালের ২১ জুন রাষ্ট্রপতি হিসেবে পদত্যাগের পর এ কিউ এম বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে নিয়ে খালেদা জিয়া বলেছিলেন, ‘ষড়যন্ত্রের শেকড় উপড়ে ফেলেছি’। কিন্তু কী সেই ষড়যন্ত্র তা কখনও বলেননি। আমরা বলতে চাই, ষড়যন্ত্রের মূল নায়ক হিসেবে আপনি কী কী ভূমিকা রেখেছিলেন।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমি সংসদে দুই ঘণ্টা দাঁড়িয়ে মাননীয় স্পিকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে চেয়েছিলাম কিন্তু আমাকে সে সুযোগ দেওয়া হয়নি। একটি শব্দ উচ্চারণও করতে দেওয়া হয়নি। তখন বি চৌধুরীর বিরুদ্ধে ‘বেইমানির অভিযোগ’ এনে মিথ্যাচার করেছিলেন বিএনপি নেতারা।


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


কৃষকবান্ধব কৃষিনীতির অভাবে কৃষকরা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে: শহিদুল ইসলাম কবির
জানুয়ারি ১৩, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


শহিদুল ইসলাম কবির

কৃষক-মজুরদের প্রতি সরকারের উধাসীনতা, অবহেলা, দুর্নীতি কারনে ও কৃষকবান্ধব কৃষিনীতির অভাবে দেশের কৃষকরা স্বাধীনতার ৪৭ বছর পর্যন্ত ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক শহিদুল ইসলাম কবির।

শনিবার (১৩ জানুয়ারি) ডেমরার অর্পিতা কমিউনিটি সেন্টারে ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলন ঢাকা মহানগরের ডেমরা থানা শাখা আয়োজিত কর্মী সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলন ডেমরা থানা শাখার আহবায়ক আলহাজ্ব জাফরুল্লাহ জেহাদীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কর্মী সম্মেলনে আরো বক্তব্য রাখেন, প্রফেসর ড. আলী আকবর, মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদ ও হাফেজ মোঃ মাজহারুল ইসলাম প্রমূখ।

শহিদুল ইসলাম কবির বলেন, কৃষককে ক্ষতিগ্রস্ত করে সরকারগুলো জনগনের দৃষ্টি আকর্ষনের জন্য উন্নত রাষ্ট্র গঠনের যে শ্লোগান দিয়ে যাচ্ছে তা হাস্যকর ছাড়া কিছুই নয়। টেন্ডারবাজ, লুটেরা, চাঁদাবাজ ও ব্যংক ডাকাতদের সুযোগ দিতে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ের সরকারগুলো সিংহভাগ সিদ্ধান্ত গ্রহন করেছে। কিন্ত কৃষককে ক্ষতির হাত থেকে বাঁচিয়ে লাভবান করতে বর্তমান সরকারসহ কোন সরকারই কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেয়নি।

তিনি চীন-রাশিয়ার মতো বাংলাদেশে একটি সফল কৃষি বিপ্লবের জন্য ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলন ঘোষিত ১৫ দফা দাবী বাস্তবায়নে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান।

কর্মী সম্মেলনে আলহাজ্ব জাফরুল্লাহ জেহাদীকে সভাপতি, মোঃ আসাদুজ্জামান আসাদকে সিনিয়র সহ-সভাপতি ও হাফেজ মোঃ মাজহারুল ইসলামকে সাধারণ সম্পাদক করে ইসলামী কৃষক-মজুর আন্দোলন ডেমরা থানা শাখা কমিটি ঘোষণা করা হয়।