‘নির্বাচন বাতিলের এজেন্ডা থাকলে প্রধানমন্ত্রীর সংলাপে অংশ নেবে ঐক্যফ্রন্ট’

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সংলাপে গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাতিল বিষয়ক এজেন্ডা থাকলে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট অংশ নেবে বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে সিলেটে হজরত শাহজালাল রহঃ এর মাজার জিয়ারত শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এমন ইঙ্গিত দেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। বালাগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় নিহত ছাত্রদল নেতা সায়েমের পরিবাবের খোঁজখবর নিতে সিলেটে গেছেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা।

মির্জা ফখরুল বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনের পর প্রধানমন্ত্রী আবার সংলাপের ডাক দিয়েছেন। তবে সংলাপের এজেন্ডা কী হবে সেটা জানানো হয়নি। এজেন্ডায় যদি বিগত নির্বাচন বাতিল করে নিরপেক্ষ সরকারের অধীন নির্বাচনের বিষয় থাকে তাহলে আমরা সংলাপ নিয়ে চিন্তা ভাবনা করব। কারণ নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে যে সংলাপ হয়েছিল তা অর্থবহ হয়নি।

উল্লেখ্য, রবিবার (১৩ জানুয়ারি) আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আবারো সংলাপে বসবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, যাদের সঙ্গে আলোচনা হয়েছিলো খুব শিগগিরই তাদেরকে চিঠি দিয়ে আমন্ত্রণ জানাবেন প্রধানমন্ত্রী। তারা যদি গণভবনে আসেন তাহলে তো সামনা-সামনি তাদের আমরা অনুরোধও করতে পারি সংসদে আসার জন্য।


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


নিত্যপণ্যের দাম কমানোর দাবি বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের
জানুয়ারি ১৩, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সিনিয়র নায়েবে আমীর মাওলানা ইসমাঈল নূরপুরী বলেছেন, চাল, মাছ ও মুরগিসহ নিত্যপণ্যের দাম লাগামহীন। নির্বাচনের পর সরকার বাজার নিয়ন্ত্রণ করতে সম্পূর্ণ ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে। দ্রব্যমূল্যের এ উর্ধ্বগতি খেটে খাওয়া মানুষের ক্রয় ক্ষমতার বাহিরে চলে গেছে। চালের দাম কেজি প্রতি চার থেকে পাঁচ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। অন্যদিকে কৃষকদের অভিযোগ ধানের উপযুক্ত মূল্য তারা পাচ্ছেন না। ভোক্তা সাধারণ এবং উৎপাদনকারী কৃষক উভয়কে ঠকিয়ে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে একশ্রেণির প্রতারক ব্যবসায়ী পায়দা লুটছে। ফলে দেশের মধ্যবিত্ত ও গরীব শ্রেণির লোক মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। অন্যদিকে কৃষকরা চাষাবাদ থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে।

১২ জানুয়ারি (শনিবার) দলেন নির্বাহী মিটিং এ সভাপতির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মাওলানা ইসমাঈল নূরপুরী বলেন, এ পরিস্থিতিতে খাদ্যমন্ত্রী ও বাণিজ্য মন্ত্রীকে বসে না থেকে উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সরকারের উর্ধ্বতন মহল এনিয়ে মাথা ঘামাতে হবে। অন্যথায় দেশে ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে। দিনের পর দিন বিভিন্ন অজুহাতে নিত্য পণ্যের দাম বৃদ্ধি হতে থাকলে হাজার হাজার মানুষ না খেয়ে মরতে হবে। সাধারণ জনগণের আয়ের তুলনায় ব্যয়ের হার বেড়েই চলছে। বাজার নিয়ন্ত্রণ করে সমতা সৃষ্টি করতে হবে।

মহাসচিব মাওলানা মাহফুজুল হক এর পরিচালনায় বৈঠকে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, নায়েবে আমীর মাওলানা যোবায়ের আহমদ আনসারী, মাওলানা আলী উসমান, মাওলানা রেজাউল করীম জালালী, মুফতী সাঈদ নূর, যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা জালালুদ্দীন আহমদ, মাওলানা আতাউল্লাহ আমীন, সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা কোরবান আলী, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা মুহসিনুল হাসান, সহ-প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মাওলানা হারুনুর রশীদ ভূঁইয়া, নির্বাহী সদস্য মাওলানা নিয়ামাতুল্লাহ, মাওলানা হাসান মুরাদাবাদী, মাওলানা জসিম উদ্দীন, মাওলানা ফয়সাল আহমদ, মুহাম্মদ আব্দুর রহীম, মাওলানা রুহুল আমীন খান প্রমূখ।