বাংলাদেশের সব দূতাবাসকে সতর্কবার্তা

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | ডেস্ক রিপোর্ট


কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসে প্রবাসী শ্রমিকদের হামলার প্রেক্ষিতে সব দূতাবাসকে সতর্কবার্তা পাঠিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। পাশাপাশি এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি যাতে না ঘটে, সে জন্য প্রবাসীদের আহ্বান জানানো হয়েছে।

সম্প্রতি কুয়েতের লেসকো কোম্পানিতে কর্মরত বাংলাদেশি শ্রমিকদের আক্রমণে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলরসহ তিনজন আহত হন।

স্থানীয় পুলিশ আসার পর পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আসে। এ সময় বেশ কিছুসংখ্যক শ্রমিককে পুলিশ গ্রেপ্তার করে।

ইতোমধ্যে কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাস ও বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে তাদের দ্রুত মুক্ত করার পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

জানা গেছে, বাংলাদেশি শ্রমিকদের কয়েক মাসের বেতন বকেয়া বিষয়ে দেশটির লেসকো কোম্পানির মালিককে কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসে ডেকে পাঠানো হয়েছিল।

বৈঠকে ওই কোম্পানি গত ৫ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বেতন পরিশোধ ও আকামা নবায়নসহ সব সমস্যা সমাধানে রাজি হয়। বৈঠক শেষে কোম্পানির মালিকপক্ষ বের হয়ে এলে শ্রমিকদের রোষানলে পড়েন।

এ সময় বাংলাদেশি শ্রমিকদের আক্রমণে কুয়েতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কাউন্সেলরসহ তিনজন আহত হন।


ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্স

ইনসাফ সাংবাদিকতা কোর্সদেশের প্রথম ইসলামী ঘরানার অনলাইন পত্রিকা ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকমের আয়োজনে শুরু হতে যাচ্ছে স্বল্পমেয়াদী সাংবাদিকতা কোর্স।অংশগ্রহণ করতে যোগাযোগ করুন এই নাম্বারে-০১৭১৯৫৬৪৬১৬এছাড়াও সরাসরি আসতে পারেন ইনসাফ কার্যালয়ে।ঠিকানা – ৬০/এ পুরানা পল্টন ঢাকা ১০০০।

Posted by insaf24.com on Monday, October 29, 2018


অবশেষে আপসের প্রস্তাব দিলেন ট্রাম্প; প্রত্যাখ্যান করেছেন ডেমোক্র্যাটরা
জানুয়ারি ২০, ২০১৯
ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


অবশেষে আপস করার প্রস্তাব দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

সরকারের কার্যক্রমে অচলাবস্থা বা আংশিক শাট-ডাউন থেকে বেরিয়ে আসতে শেষ পর্যন্ত তিনি এই প্রস্তাব দিলেন।

তিনি যুক্তরাষ্ট্রের অভিবাসন নীতির সাথে আপসের কথা বলেছেন।

হোয়াইট হাউজ থেকে ট্রাম্প বলেছেন, প্রায় ১০ লাখ অভিবাসীকে বহিষ্কারের হুমকি তিনি প্রত্যাহার করে নেবেন। বৈধ কাগজপত্র ছাড়া যে তরুণরা রয়েছে, তারাও এর আওতায় পড়বে।

তিনি আরো বলেছেন, মানবিক সাহায্যের জন্য আট শ’ মিলিয়ন ডলার দেয়া হবে। একইসাথে সীমান্তে নিরাপত্তা বাড়ানোর জন্য একই পরিমাণ অর্থ দেয়া হবে। এই অর্থ সীমান্তে অতিরিক্ত ২৭৫০ জন নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগে সহায়তা করবে।

কিন্তু ট্রাম্প মেক্সিকো সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের অবস্থান থেকে সরে আসেননি। তিনি সেজন্য ৫৭০ মিলিয়ন ডলার যে চেয়েছিলেন, সমঝোতার প্রস্তাবেও তাঁর সেই দাবি বহাল রয়েছে।

তবে ট্রাম্পের প্রস্তাবকে অগ্রহণযোগ্য বলে বর্ণনা করেছে ডেমোক্র্যাটরা।

যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘ সময় অর্থাৎ চার সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে এই আংশিক শাট-ডাউন চলছে। এরফলে প্রায় ৮ লাখ ফেডারেল কর্মী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

প্রেসিডেন্ট নিজেই তাঁর ভাষণের আগে প্রচার করেছেন যে, তিনি গুরুত্বপূর্ণ ঘোষণা দেবেন।

তিনি শুরু করেন যে, যুক্তরাষ্ট্রের বৈধ অভিবাসীদের স্বাগত জানানোর গর্বিত ইতিহাস আছে। কিন্তু অভিবাসন পদ্ধতি খুব খারাপভাবে ভেঙ্গে ফেলা হয়েছে দীর্ঘ সময় ধরে।

ট্রাম্প আরো বলেছেন, তাঁর নির্বাচনী প্রচারণায় তিনি অভিবাসন নীতি বা পদ্ধতি ঠিক করার অঙ্গীকার করেছিলেন।

তিনি বলেছেন, “আমার সেই প্রতিশ্রুতি পালন করার ইচ্ছা রয়েছে।”

তাঁর বক্তব্য হচ্ছে, তিনি তাঁর প্রস্তাবের মাধ্যমে কংগ্রেসকে সরকারের কার্যক্রমের শাট-ডাউন থেকে বেরিয়ে আসার একটা উপায় করে দিলেন।

কিন্তু তিনি আবারও সীমান্তে দেয়াল নির্মাণের পক্ষে যুক্তি তুলে ধরেন।

যদিও তিনি বলেছেন, এই দেয়াল পুরো সীমান্ত জুড়ে নয়, এটি সীমান্তের অগ্রাধিকার এলাকায় করা হবে।তবে তিনি ঐ ৫৭০ মিলিয়ন ডলারের দাবির কথাই তুলে ধরেন।