যেসব কারণে ইমরান খানের তৃতীয় স্ত্রী হলেন বুশরা!

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নজরুল ইসলাম 


তৃতীয়বারের মতো বিয়ে করেছেন ৬৫ বছর বয়সি  পাকিস্তান ক্রিকেটের সর্বকালের সেরা অধিনায়ক ইমরান খান। এ ঘটনায় পাকিস্তানে তো বটেই, ক্রিকেট বিশ্বেও সাড়া পড়ে গিয়েছে। ইমরানের স্ত্রী চল্লিশের বুশরা ওয়াটো। কে এই নারী, যার প্রেমে গলে গেলেন ইমরান? এমনকি হয়ে যেতে পারেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীও! জেনে নেওয়া যাক বুশরা সম্পর্কে।

বুশরার পরিবার
ইমরান খানের সাথেও বিয়ের আগে বুশরার একবার বিয়ে হয়েছিল। আগের স্বামী খওহর ফরিদ এর ঘরে পাঁচ সন্তান রয়েছে তার। তিন মেয়ে এবং দুই ছেলে। তার মধ্যে দুই মেয়ের বিয়ে হয়ে গিয়েছে। তবে ইমরান বিয়ের প্রস্তাব দেওয়ার আগেই বিচ্ছেদ হয়ে গিয়েছিল বুশরার।

বুশরার প্রাক্তন স্বামী
খওহর ফরিদ একজন কাস্টমস কর্মকর্তা। প্রচুর প্রতিপত্তি। তাঁর পিতা গুলাম ফরিদ মানেকা বেনজির ভুট্টোর সরকারে মন্ত্রিত্বও করেছেন। তবে, কর্মজীবনের রেকর্ড ভালো নয় খওহর ফরিদ এর। একাধিকবার ঘুষ খাওয়ার অভিযোগ উঠেছে। অধঃস্তন কর্মচারীরাও ফরিদ এর বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেছেন।

নারী পীর বুশরা
পীরবংশের সন্তান বুশরা। নিজেও পাকপাট্টান এলাকার একজন খ্যাতনামা নারী পীর। বুশরা আধ্যাত্মিকতার দীক্ষায় দীক্ষিত। সেই সূত্রেই ইমরান খানের সঙ্গে বুশরার আলাপ। আধ্যাত্মিকতার পথ দেখতে বুশরার পরামর্শ নিতে শুরু করেন ইমরান। সেটা বছরখানেক আগের কথা। তারপর থেকে দেখাশোনা ও ঘনিষ্টতা বাড়তে থাকে। এর এক বছরের মধ্যেই নিকাহ সেরে ফেললেন ইমরান।

স্বপ্নে নবীর আদেশ
আগের স্বামীর সঙ্গে কোনোরকম অশান্তির কথা অস্বীকার করেছেন বুশরা। মানেকাও বিচ্ছেদ প্রসঙ্গে কোনো গোলমালের কথা জানাননি। তাহলে কেন বিচ্ছেদ হল বুশরা-খওহরের?

খওহরের দাবি, একদিন বুশরা এসে তাঁকে জানান, তিনি মহানবী হজরত মোহাম্মদের (সা.) কাছ থেকে স্বপ্নাদেশ পেয়েছেন। সেখানে হজরত নিজে এসে নাকি বুশরাকে বলেছেন, ইমরানকে বিয়ে করার জন্য(!)। তাহলেই নাকি ইমরান সমস্ত বাধা পেরিয়ে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন। এবং সেটা হলে পাকিস্তান এই জর্জরিত অবস্থা থেকে মুক্তি পাবে ও অসাধারণ দেশে উন্নীত হবে।

এই হলো বুশরা বৃত্তান্ত। তবে সবকিছু ছাপিয়ে বড় সত্য হলো, বুশরা এখন ইমরান খানের স্ত্রী। আর বুশরার স্বপ্ন সত্যি হলে ইমরান খানের প্রধানমন্ত্রী হওয়া এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র!