দলীয় লোকদের চাল না দেয়ায় ইউপি চেয়ারম্যানকে থাপ্পড় দিলেন হুইপ ছেলুন

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | নিজস্ব প্রতিনিধি


ভিজিএফ’র চাল বিতরণে নিয়ম ভেঙে হুইপের বেআইনী শর্ত না মানায় ইউপি চেয়ারম্যানকে লাঞ্ছিত করেছেন চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন।

গত বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে চুয়াডাঙ্গা সদরের মোমিনপুর ইউনিয়ন পরিষদে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় লাঞ্ছনার শিকার হয়েছেন জেলা কৃষকলীগের সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক জোয়ার্দ্দার, ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান।

পবিত্র ঈদ-উল-ফিতর সামনে রেখে ভিজিএফ’র চাল বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করার কথা ছিল হুইপ ছেলুন জোয়ার্দ্দার এমপি’র। সে অনুযায়ী এ ইউনিয়নের হতদরিদ্র, গরীব, দুঃখী ও নিম্ন আয়ের ৯৪০ জনকে ভিজিএফ কার্ড দেয়া হয়। কার্ডধারীদের জনপ্রতি ১০ কেজি করে চাল বরাদ্দ এসেছে। কার্যক্রম উদ্বোধনের  ইউনিয়ন পরিষদে হাজির হন চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের সাংসদ, জাতীয় সংসদের হুইপ সোলায়মান হক জোয়ার্দ্দার ছেলুন।

হুইপ ছেলুন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে বলেন, ‘আমার দলের লোকজনকে চাল দিচ্ছিস না কেনো’। নিয়ম ভেঙে বরাদ্দকৃত চাল হতদরিদ্র ব্যতীত অন্য কাউকে দেয়া যাবে না- চেয়ারম্যানের এমন সোজাসাপটা উত্তর  দিলে রেগে যান হুইপ ছেলুন। তিনি ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক জোয়ার্দ্দারকে চড় থাপ্পড় মারতে শুরু করেন। উপস্থিত হাজারো জনতার সামনে প্রকাশ্যে চেয়ারম্যানের গায়ে হাত তোলার প্রতিবাদ করতে গেলে হুইপ ছেলুনের সাথে থাকা লোকজন ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান, আনিছুর রহমান ও মিলন মিয়াকেও বেদম মারধর করে। তারপরও বরাদ্দকৃত কার্ড নিয়মের বাইরে বিতরণে নারাজ ইউপি চেয়ারম্যান।

এর আগে স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেত্রী শেফালী খাতুন ওরফে বিন্দু মাসী তার লোকজন নিয়ে ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে নিজ দলীয় নেতাকর্মী ও লোকজনের জন্য বরাদ্দকৃত কার্ড ও চালের ৪০% দাবি করেন। তার এই নিয়ম বর্হিভূত দাবি মেনে না নেয়ায় হস্তক্ষেপ চেয়ে খবর পাঠানো হয় হুইপ ছেলুন জোয়ার্দ্দারের কাছে।