বেলজিয়ামে হিজাব পড়তে বাধা দেয়ায় ডিগ্রি নিতে অস্বীকৃতি মুসলিম তরুণীর

ইনসাফ টোয়েন্টিফোর ডটকম | আন্তর্জাতিক ডেস্ক


বেতুল বাসলিক

বেলজিয়ামে হিজাব পরতে বাধা দেয়া ইন্টার্নশীপ কোর্স করতেই অস্বীকার করেছেন বেতুল বাসলিক নামের এক মুসলিম ছাত্রী।  তিনি দেশটির ভিরিজে ইউনিভার্সিটির সামাজিক সেবা ও শিক্ষাবিজ্ঞান বিভাগ থেকে মাস্টার্স কোর্সের তত্ত্বীয় অংশ সম্পন্ন করেছেন; কিন্তু কোর্স পরবর্তী ইন্টার্নশীপ করতে একটি প্রতিষ্ঠানে যাওয়ার পর সেখানে তার হিজাব নিয়ে আপত্তি করা হয়। প্রতিবাদে ইন্টার্নশীপ না করারই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তিনি।

তুর্কি বংশোদ্ভূত হলেও বেতুলের জন্ম ও বেড়ে ওঠা বেলজিয়ামে।এর আগে আয়ারল্যান্ড থকে ভাষার ওপর ডিগ্রি নিয়েছেন বেতুল। ডেনমার্কেও কিছুদিন পড়াশুনা করেছেন। ইন্টার্নিশীপ করেছেন মালয়েশিয়ায়। ডাচ, ইংলিশ, ফ্রেঞ্চ ও তুর্কি ভাষা জানেন এই বেলজিয়ান মুসলিম তরুণী।

বেতুল জানান, সফলতার সাথে মাস্টার্স কোর্স সম্পন্ন করেছি। আমার অ্যাকাডেমিক পারফরম্যান্সের শিক্ষকরাও দারুণ প্রশংসা করেছেন। সামাজিক সেবার ওপর বাস্তব অভিজ্ঞতা লাভের জন্য লিমবুর্গ প্রদেশের লিওপোল্ডর্সবার্গ শহরের একটি বৃদ্ধাশ্রমে আবেদন করেন। প্রতিষ্ঠানটিতে তার ইন্টারভিউও ভালো হয়েছে।

কিন্তু ইন্টারভিউ বোর্ডে এক নারী কর্মকর্তা তাকে বলেন, বেতুলকে কাজের সুযোগ দেয়ার আগে তিনি অবশ্যই পৌরসভার কর্তৃপক্ষকে ডাকবেন যে তার হিজাব পরে কাজ করার অনুমতি আছে কী না।এরপর পৌরসভার কর্মকর্তারা এসে বলেন, হিজাব পরলে আমাকে নিয়োগ করা হবে না। যদি হিজাব ছাড়তে পারি, তবে আমাকে নেয়া হবে।

আমি স্পষ্ট বলে দিয়েছি, আমার ধর্ম বিশ্বাস কিছুতেই ত্যাগ করতে পারবো না। তাই হিজাবও ছাড়তে পারবো না। যে কারণে আমাকে আর নিয়োগ দেয়নি তারা।

বেতুল বলেন, প্রতিষ্ঠানটিতে নিয়োগ পাওয়ার জন্য যে শিক্ষাগত যোগ্যতা দরকার, সবাই তার ছিলো। তিনি ভেবেছেন নিয়োগ পেতে এসবই যথেষ্ট হবে। এই শিক্ষার্থী বলেন, আমি আর দশজন সাধারণ নাগরিকের মতোই সমান অধিকার চেয়েছি। অন্য বেলজিয়ানদের তারা যে অধিকার দেয় আমাকে তা দেয়নি। আমি ও আমার মতো যারা, তাদেরকে তারা নেবে না।